corona virus btn
corona virus btn
Loading

ফেসবুকে লাইভ করে জীবিত থাকার প্রমাণ দিলেন করোনা আক্রান্ত চিকিৎসক

ফেসবুকে লাইভ করে জীবিত থাকার প্রমাণ দিলেন করোনা আক্রান্ত চিকিৎসক

সুজয়বাবু বলেন, ‘করোনা আক্রান্ত হওয়ার দু’‌দিন পরেই গুজব ছড়িয়েছিল আমার শারীরিক অবস্থা নাকি আশঙ্কাজনক, হাসপাতালের ভেন্টিলেশনে আছি।

  • Share this:

#‌হাওড়া:‌ সোশ্যাল মিডিয়াতে লাইভ করে নিজের জীবিত থাকার প্রমা‌ণ দিতে হল চিকিৎসকে। হাওড়া কলকাতার স্বনামধন্য শল্য চিকিৎসক সুজয় কুন্ডু মৃত বলে শহরের গন্ডি ছাড়িয়ে গ্রামেগঞ্জেও গুজবে তোলপাড় রবিবার সকাল থেকে দুপুর‌। অবশেষে ফেসবুকে নিজে লাইভ করে নিজের জীবিত থাকার প্রমান দিতে হল তাঁকে। ঠিক যেন রামায়ণে সীতার অগ্নি পরীক্ষার মতো।

শল্য চিকিৎসক সুজয় কুন্ডু গোটা করোনা কালে প্রতিদিন নিজের জীবন বাজি রেখে রোগীদের চিকিৎসা করে গিয়েছেন, কখনও দৌড়ে গিয়েছেন বস্তি এলাকায় খাদ্যসামগ্রী, ওষুধ নিয়ে। আবার কখনও PPE পরে রাস্তায় দাঁড়িয়ে করেছেন চিকিৎসা | চিকিৎসা করতে গিয়েই কয়েকদিন আগেই কোনো উপসর্গ ছাড়াই করোনায় আক্রান্ত হন সুজয় বাবু। উপসর্গ না থাকায় নিজের বাড়ির একটি ঘরে হোম আইশোলেসনে আছেন তিনি | ১৪ দিন অতিক্রান্ত হয়েছে। তাঁর সোমবার পরবর্তী করোনা টেস্ট করার কথা তার। এরই মধ্যে রবিবার সকাল থেকে শুরু হয় তাঁর স্ত্রী ও পরিচিতদের কাছে ফোন। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়াতে ‘‌RIP’‌ লিখে শুরু হয় পোস্ট।

এরপর পরিস্থিতি আয়ত্তের বাইরে চলে এলে অবশেষে ফেসবুকে নিজের জীবিত থাকার বার্তা দেন চিকিৎসক। সুজয়বাবু বলেন, ‘‌করোনা আক্রান্ত হওয়ার দু’‌দিন পরেই গুজব ছড়িয়েছিল আমার শারীরিক অবস্থা নাকি আশঙ্কাজনক, হাসপাতালের ভেন্টিলেশনে আছি। সেই গুজব কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আমার মৃত্যুর খবরে নিজেই স্তম্ভিত হয়ে যাই। করোনা নিয়ে মানুষের অসচেতনতা ও অবজ্ঞা বেড়েই চলছে। যেখানে বিশ্বজুড়ে এই রোগের মৃত্যুর হার অনেক কম তাও মানুষ মনে করছে করোনা আক্রান্ত হওয়া মানেই মৃত্যু। করোনা রোগীকে অবজ্ঞা–ঘৃণা করা এখন সমাজের নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে।’‌ তাঁর দাবি, অনেকেই ফোন করে বা সোশ্যাল মিডিয়াতে ক্ষমা চাইছেন। কিন্তু এই ভাবে চলতে থাকলে করোনা আক্রান্ত রোগীদের মৃত্যু রোগে নাই হোক, সামাজিক অবজ্ঞার জন্য তো হবেই।

Debasish Chakraborty

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: July 12, 2020, 6:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर