দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বর্ধমানের ঐতিহ্যবাহী বি সি রোডকে নো পার্কিং জোন ঘোষণা করল প্রশাসন

বর্ধমানের ঐতিহ্যবাহী বি সি রোডকে নো পার্কিং জোন ঘোষণা করল প্রশাসন

মৌখিক সতর্কতায় কাজ না হলে কড়া হাতে নিয়ম মানতে ব্যবসায়ী ও বাসিন্দাদের বাধ্য করা হবে।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: বর্ধমানের বি সি রোডকে নো পার্কিং জোন ঘোষণা করল প্রশাসন। পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে কার্জন গেটের ঠিক নিচে বি সি রোডে ঢোকার মুখে নো পার্কিং জোন বোর্ড বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। কয়েকদিন আগেই বর্ধমানের রাজ আমলের ঐতিহ্যবাহী বি সি রোড জবরদখল হয়ে যাওয়ার খবর প্রকাশিত হয়েছিল নিউজ 18 বাংলায়। বি সি রোডে যত্রতত্র বেআইনি পার্কিংয়ের ফলে হাঁটা চলার ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হচ্ছিল বাসিন্দাদের। নিউজ18 বাংলায় সেই সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়। এরপরই এই রাস্তাকে জবর দখল মুক্ত করতে উদ্যোগী হয়েছে জেলা প্রশাসন। তার জেরেই এই রাস্তাকে নো পার্কিং জোন ঘোষণা করা হয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

বর্ধমানের মহারাজ বিজয় চাঁদের নাম অনুসারে এই রাস্তার নাম বি সি রোড। বর্ধমানের কার্জন গেট থেকে সোজা এই রাস্তা রাজবাড়ি পর্যন্ত চলে গিয়েছে। আগে কার্জন গেট থেকে সরাসরি রাজবাড়ির ঘড়ি দেখা যেত। জবর দখলের কারণে এই রাস্তা সংকীর্ণ হয়েছে দিনে দিনে। তার ওপর রাস্তার ওপর দাঁড় করিয়ে রাখা হচ্ছে সাইকেল, মোটর সাইকেল, ভ্যান রিক্সা। তার ফলে বাসিন্দাদের হাঁটাচলা দায় হয়ে উঠেছে।

তাঁরা বলছেন, ফুটপাত অনেকদিন আগেই হকারদের দখলে চলে গিয়েছে। তার ওপর রাস্তাতে হকারদের পসরা, সাইকেল মোটর সাইকেলের ভিড়। তার ফলে মাঝ রাস্তা ধরে হাঁটতে হচ্ছে। ছোট বড় দুর্ঘটনা লেগেই থাকছে।

পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই এই রাস্তায় সাইকেল, মোটর সাইকেল পার্কিং বন্ধ করতে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাইকে প্রচার চালানো হচ্ছে। সাইকেল, মোটরসাইকেল নির্দিষ্ট পার্কিং প্লেসে রাখতে অনুরোধ জানানো হচ্ছে। কিন্তু তাতেও কাজ না হওয়ায় এ বার এই রাস্তায় নো পার্কিং বোর্ড বসানো হল। জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানান,  এখন প্রাথমিকভাবে বাসিন্দাদের সতর্ক করে দেওয়া হচ্ছে। মৌখিক সতর্কতায় কাজ না হলে কড়া হাতে নিয়ম মানতে ব্যবসায়ী ও বাসিন্দাদের বাধ্য করা হবে। সে ক্ষেত্রে সাইকেল, মোটর সাইকেলে কাঁটা লাগানো, জরিমানা আদায় করা হবে বলেও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

প্রশাসনের এই উদ্যোগে খুশি শহরের বাসিন্দাদের একটা বড় অংশই। তাঁদের বক্তব্য, রাজ আমলের ঐতিহ্যবাহী এই রাস্তা সুন্দর করে সাজিয়ে তোলা হোক। রাস্তা চওড়া করার পাশাপাশি সেখানে সুন্দর বাতিস্তম্ভ,বসার জায়গা করা হোক। তাতে শহরে যান চলাচলে শৃঙ্খলা ফিরবে।সৌন্দর্যায়ন ঘটবে এই রাস্তার।

Published by: Simli Raha
First published: September 23, 2020, 9:14 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर