দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘দিদিই ফিরছেন’...পোস্টারে ছেয়ে গিয়েছে বাঁকুড়া শহর

‘দিদিই ফিরছেন’...পোস্টারে ছেয়ে গিয়েছে বাঁকুড়া শহর

জেলার ১২ বিধানসভা আসনেই পিছিয়ে আছে রাজ্যের শাসক দল। যদিও এরই মধ্যে বাঁকুড়ার রাস্তায় পোস্টার পড়েছে ‘দিদিই ফিরছেন’।

  • Share this:

#বাঁকুড়া: গত লোকসভা ভোটে বাঁকুড়া জেলার দুটি আসনেই পরাজিত হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিধানসভা ভিত্তিক পর্যালোচনায় দেখা গিয়েছে, জেলার ১২ বিধানসভা আসনেই পিছিয়ে আছে রাজ্যের শাসক দল। যদিও এরই মধ্যে বাঁকুড়ার রাস্তায় পোস্টার পড়েছে ‘দিদিই ফিরছেন’।

নীল-সাদা পোস্টারে ছেয়ে গিয়েছে বাঁকুড়া শহর। এমনকী, রাজনৈতিক সভা যেখানে আজ মুখ্যমন্ত্রী করবেন সেই শুনুকপাহাড়ি যাওয়ার পথে রাস্তার একাধিক জায়গায় লক্ষ্যণীয় এই পোস্টার। বাঁকুড়া জেলা তৃণমূল নেতাদের দাবি, লোকসভা ভোট ও বিধানসভা ভোটের প্রেক্ষিত সম্পূর্ণ আলাদা। ফলে আগামী বিধানসভা ভোটে জয় হবে তাদেরই।

গত রবিবার থেকে বাঁকুড়া জেলায় আছেন মুখ্যমন্ত্রী। এই সফরে প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক দুই ধরণের সভাই তিনি করছেন। সোমবার বাঁকুড়ার খাতড়ার প্রশাসনিক সভা থেকেই মুখ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেছিলেন, সরকার গঠন করবেন তাঁরাই। ক্ষমতায় ফিরছেন তাঁরাই। মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্য কার্যত প্রতিফলিত হচ্ছে এই পোস্টারেই। বাঁকুড়া জেলায় ইতিমধ্যেই প্রশাসনিক কাজে আরও গতি আনানোর পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী সক্রিয় হতে বলেছেন পঞ্চায়েত সমিতি ও জেলা পরিষদের সদস্যদের।

মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, " জেলা পরিষদ ও পঞ্চায়েত সমিতিকে বলব সক্রিয় হোন। লোকের বাড়ি বাড়ি যান। তাদের সুখ দুঃখের কথা শুনুন।" দলীয় সূত্রে খবর, নেতা-কর্মীদের সক্রিয় হতে বলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো নিজে। হারানো জমি পুনরুদ্ধারে এখন থেকেই ঝাঁপিয়ে পড়তে বলেছেন তিনি। সূত্রের খবর, দলীয় কর্মীদের বলা হয়েছে নিজ নিজ এলাকায় সময় দিতে। পরিষেবা সাধারণ মানুষ যাতে সময় মতো পান সে ব্যাপারে নিশ্চিত করতে হবে। যদিও বিজেপি নেতাদের দাবি, মুখ্যমন্ত্রীর এই সফরে কোনও লাভ হবে না। রাজনৈতিক ভাবে বিজেপি তাদের পায়ের তলার মাটি এই জেলায় শক্ত করে ফেলেছে বলে মত নেতাদের। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, "মুখ্যমন্ত্রী ভয় পেয়ে গিয়েছেন। তাই অমিত শাহের সফরের পরে ভোটের আগে বাঁকুড়া গিয়েছেন তিনি।" বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ দাবি করেছেন বিধানসভা ভোটে জেলার সব আসনেই জয় পাবে তাঁর দল।

আবীর ঘোষাল

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: November 25, 2020, 8:01 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर