বাড়ছে মৃত্যু! পূর্ব বর্ধমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়ালো ২৩ হাজার 

করোনার সংক্রমণ ব্যাপক আকার ধারণ করলেও এখনও জেলার মূল বাজারগুলিতে ব্যাপক ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখেই কেনাবেচা করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা।

করোনার সংক্রমণ ব্যাপক আকার ধারণ করলেও এখনও জেলার মূল বাজারগুলিতে ব্যাপক ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখেই কেনাবেচা করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা।

  • Share this:

#পূর্ব-বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় ফের নতুন করে ৭১২ জন করোনা আক্রান্ত হলেন। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বর্ধমান শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। শুধুমাত্র জেলার সদর শহর বর্ধমানে গত চব্বিশ ঘণ্টায় ১৭৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। করোনার সংক্রমণ ব্যাপক আকার ধারণ করলেও এখনও জেলার মূল বাজারগুলিতে ব্যাপক ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখেই কেনাবেচা করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা।

সরকারের বেঁধে দেওয়া সময় সীমার বাইরেও দোকান বাজার খোলা থাকছে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়াই ঘরের বাইরে পা রাখছেন অনেকেই। বাসিন্দারা সচেতন না হলে হলে সংক্রমণ আরও অনেকটাই বাড়বে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এই মুহূর্তে ২৩ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। এ দিন পর্যন্ত এই জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২৩,২২০ জন বাড়ছে। আরও অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা। এখনও পর্যন্ত এই জেলায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৬৫৮০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৩ জন করোনা আক্রান্তের মৃত্যু হয়েছে। এ দিন পর্যন্ত এই জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়ে ২১১ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

নতুন করে আক্রান্তদের মধ্যে বর্ধমান পৌরসভা এলাকায় রয়েছেন ১৭৯ জন। কাটোয়া পৌরসভা এলাকায় নতুন করে ৪২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। দাঁইহাট পৌরসভা এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ জন। কালনা পুরসভা এলাকায় ১৭ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মেমারি পৌরসভা এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮ জন। গুসকরা পৌরসভা এলাকায় দুজন করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে।

জেলার গ্রামীণ এলাকাগুলির মধ্যে বর্ধমান এক নম্বর ব্লকে ৫৪ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। বর্ধমান দু'নম্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ জন। আউসগ্রাম এক নম্বর ব্লকে ১৩ জন ও আউশগ্রাম দু'নম্বর ব্লকে ২৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। শুধুমাত্র ভাতার ব্লকে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭ জন। কালনা এক নম্বর ব্লকে ২০ জন ও কালনা দু'নম্বর ব্লকে ১৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। কাটোয়া এক নম্বর ব্লকে ১২ জন ও কাটোয়া দু'নম্বর ব্লকে ১৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

কেতুগ্রাম এক ও দু নম্বর ব্লকে ৫ জন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। খণ্ডঘোষ ব্লকে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮ জন। মেমারি এক নম্বর ব্লকে ৩১ জন ও মেমারি দু'নম্বর ব্লকে ১৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মঙ্গলকোট ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন ৭ জন। পূর্বস্থলী এক নম্বর ব্লকে ৩১ জন ও পূর্বস্থলী দুই নম্বর ব্লকে ১৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। রায়না এক নম্বর ব্লকে ১৭ জন রায়না দু'নম্বর ব্লকে ১১ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

Saradindu Ghosh 

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: