Home /News /south-bengal /
Purba Bardhaman News: হাইকোর্টের নির্দেশে শিক্ষিকার চাকরি গেল সিপিএম নেতার মেয়েরও! শোরগোল কালনায়

Purba Bardhaman News: হাইকোর্টের নির্দেশে শিক্ষিকার চাকরি গেল সিপিএম নেতার মেয়েরও! শোরগোল কালনায়

বরখাস্ত হওয়া শিক্ষিকার কালনার বাড়ি৷

বরখাস্ত হওয়া শিক্ষিকার কালনার বাড়ি৷

যে ২৬৯ জন শিক্ষককে বরখাস্ত করা হয়েছে, তাঁরা ২০১৪ সালে টেট পরীক্ষা দিয়েছিলেন৷ ২০১৭ সালে এই ২৬৯ জনের নামের তালিকা প্রকাশিত হয়৷

  • Share this:

#কালনা: কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে গত সোমবারই প্রাথমিকের ২৬৯ জন শিক্ষকের চাকরি বাতিল হয়েছে৷ এই শিক্ষকদের নিয়ম বহির্ভূত ভাবে নিয়োগ করা হয়েছিল বলে অভিযোগ৷ বরখাস্ত হওয়া এই শিক্ষকদের মধ্যেই রয়েছে পূর্ব বর্ধমানের কালনার এক সিপিএম নেতার মেয়ের নাম৷ যে ঘটনাকে ঘিরে রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়েছে কালনায়৷

যে ২৬৯ জন শিক্ষককে বরখাস্ত করা হয়েছে, তাঁরা ২০১৪ সালে টেট পরীক্ষা দিয়েছিলেন৷ ২০১৭ সালে এই ২৬৯ জনের নামের তালিকা প্রকাশিত হয়৷ সেই তালিকাই বাতিল করেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়৷ নিয়োগ দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে সিবিআই তদন্তের নির্দেশও দেন তিনি৷

আরও পড়ুন: একসঙ্গে চাকরি গেল ২৬৯ জন শিক্ষকের, প্রাথমিক টেট দুর্নীতিতেও সিবিআই নির্দেশ হাইকোর্টের

বরখাস্ত হওয়া ২৬৯ জনের মধ্যে পূর্ব বর্ধমান জেলার ১৭ জনের নাম ছিল৷ সেই সতেরো জনের মধ্যে ছিলেন কালনার সিপিএম নেতা বীরেন্দ্র নাথ বসু মল্লিকের মেয়ে বৈশাখী বসু মল্লিকের নাম৷ বীরেন্দ্রনাথবাবু দীর্ঘদিন কালনা পুরসভার সিপিএমের কাউন্সিলর ছিলেন৷ সিপিএমের প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক সংগঠন এবিপিটিএ-র সহ সভাপতি ছিলেন তিনি৷ বরখাস্ত হওয়া শিক্ষিকা বৈশাখীর স্বামী শুভাশিস সরকার ওরফে বাঘা ২০১৫ সালে নির্বাচনে কালনা পুরসভায় সিপিএমের প্রার্থী হয়েছিলেন৷ বৈশাখীর মা একসময় গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির দাপুটে নেত্রী ছিলেন৷

আরও পড়ুন: 'সিবিআই তদন্তে ক্লান্ত', চরম হতাশা বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের গলায়

এ হেন বৈশাখী ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে কালনার ধাপাসপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা পদে যোগ দিয়েছিলেন৷ আদালতের নির্দেশেই আপাতত চাকরি গিয়েছে তাঁর৷ বিষয়টি জানাজানি হতেই যথেষ্ট শোরগোল ছড়িয়েছে কালনা শহর জুড়ে৷ বৈশাখীদেবীর প্রতিক্রিয়া নিতে তাঁর বাড়িতে গেলেও তাঁকে পাওয়া যায়নি৷ বৈশাখীর স্বামী জানান, তিনি বাড়িতে নেই৷ চাকরি যাওয়ার বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি ওই শিক্ষিকার স্বামী৷ পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নিয়েও কিছু বলতে চাননি তিনি৷

সিপিএম নেতার মেয়ের চাকরি পাওয়া এবং বরখাস্ত হওয়ার ঘটনাকে অস্ত্র করেছে তৃণমূলও৷ কালনার তৃণমূল বিধায়ক দেবপ্রসাদ বাগ বলেন, 'শুধু তৃণমূলের লোকেরা চাকরি পেয়েছে বলে বিরোধীরা যে দাবি তোলে, তা যে ঠিক নয়, এই ঘটনাই তার প্রমাণ৷ তবে এটি আদালতের বিচারাধীব বিষয়, তাই আমরা কোনও মন্তব্য করব না৷ বিচারব্যবস্থার প্রতি আমাদের আস্থা রয়েছে৷'

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Calcutta High Court, Job, Primary TET, Purba bardhaman

পরবর্তী খবর