সাগরদ্বীপে ঘণ্টায় ১২০ কিমি বেগে আছড়ে পড়ল ‘বুলবুল’ !

সাগরদ্বীপে ঘণ্টায় ১২০ কিমি বেগে আছড়ে পড়ল ‘বুলবুল’ !
  • Share this:

#কলকাতা: আছড়ে পড়ল ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ ৷ আজ, শনিবার সন্ধে ৭.৩৭ মিনিটে সাগরদ্বীপে আছড়ে পড়ে বুলবুল ৷ ঘণ্টায় ১২০ কিমি বেগে আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় ৷ আপাতত সাগরদ্বীপ-বকখালির মাঝে বুলবুলের অবস্থান ৷ একাধিক কাঁচাবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে ৷ বুলবুলের জেরে বিমান পরিষেবা পুরোপুরি বন্ধ ৷ ১২ ঘণ্টার জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিমানবন্দর ৷

ঝড়ে লন্ডভন্ড পূর্ব মেদিনীপুরের একাধিক ব্লক ৷ দিঘা-নয়াচরের বিভিন্ন ব্লক ক্ষতিগ্রস্ত ৷ ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত নন্দীগ্রাম ও খেজুরির একাধিক মাটির বাড়ি ৷ রামনগর ২, কাঁথি ১, ২, ৩ ব্লক ঝড়ে তছনছ হয়ে গিয়েছে ৷ খেজুরি ২, নন্দীগ্রাম ১, নয়াচর দ্বীপও বুলবুলের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৷

কন্ট্রোল রুম খুলে তদারকিতে ব্যস্ত মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ৷ একাধিক স্কুলে শিবির খুলে ত্রাণ বন্টণ করা হচ্ছে ৷ শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে ৷ অনেক কাঁচাবাড়ির চাল উড়ে গিয়েছে ৷ প্রশাসন সূত্রে খবর, উদ্ধারকাজ জোরকদমে শুরু হয়েছে ৷

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের মোকাবিলায় সকাল থেকেই তৎপর নবান্ন। পরিস্থিতি তদারকির দায়িত্বে মুখ্যসচিব। নবান্নের কন্ট্রোলরুম থেকে পরিস্থিতির ওপর নজর রাখেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। লক্ষাধিক মানুষকে অনেক আগেই অন্যত্র সরানো হয়।

বুলবুল মোকাবিলায় ২৪ ঘণ্টার নজরদারি চলছে। নবান্নের কন্ট্রোলরুমে হাজির ছিলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যসচিবের নেতৃত্বে কন্ট্রোলরুম থেকেই পরিস্থিতির ওপর নজরদারি চালান আধিকারিকরা। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সোমবার স্কুল-কলেজ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার নবান্নর সভাঘরে মন্ত্রীদের নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক ছিল মুখ্যমন্ত্রীর। বাতিল করা হয়েছে সে বৈঠকও।

উপকূলীয় এলাকা থেকে নিরাপদ জায়গায় সরানো হয়েছে বাসিন্দাদের।

দক্ষিণ ২৪ পরগনা থেকে ৫৫ হাজার বাসিন্দাকে সরানো হয়েছে

উত্তর ২৪ পরগনা থেকে সরানো হয়েছে ৪৩,১০০ জনকে পূর্ব মেদিনীপুর থেকে সরানো হয়েছে ২২,৪০০ জনকে পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে সরানো হয়েছে ১০০০ জনকে হুগলি থেকে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৯,১২৬ জনকে কলকাতা থেকে ২ হাজার ৫০০ জনকে সরানো হয়েছে হাওড়া থেকে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে ১০,৪০০ জনকে

২৩৮টি রিলিফ ক্যাম্প থেকে চলছে সাহায্য। পুরসভা ও পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেই কাজ করছে প্রশাসন।

First published: November 9, 2019, 7:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर