Home /News /south-bengal /

সিপিএম নেতাকে পিটিয়ে খুন

সিপিএম নেতাকে পিটিয়ে খুন

পশ্চিম মেদিনীপুরে সিপিএম নেতাকে খুন করার ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায় ৷

  • Share this:

    #মেদিনীপুর: পশ্চিম মেদিনীপুরের সিপিএম নেতাকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ। স্থানীয় তৃণমূল নেতাসহ তিনজনের  বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে পরিবার। নিহত গৌতম মিত্র ডিওয়াইএফআই-র প্রাক্তন রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য।  নিহত নেতার পরিবারের অভিযোগ, বাজারে যাওয়ার সময়ে তাঁকে রাস্তায় ফেলে বেধড়ক মারধর করে তৃণমূলের লোকজন।  গতকাল রাতে এসএসকেএমে মৃত্যু হয় গৌতম মিত্রর । প্রতিহিংসা বশে খুন করা হয়েছে তাঁকে।  দাবি সিপিএমের।  অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। বাজার যাওয়ার পথে খুন হন পশ্চিম মেদিনীপুরের ডিওয়াইএফআই নেতা গৌতম মিত্র ।  মঙ্গলবার খয়েরুল্লাচকে বাড়ির কাছে এই ঘটনা ঘটে।  রবীন্দ্র জয়ন্তীর সকালে এলাকার চায়ের দোকানে আড্ডা মারছিলেন সিপিএমের কয়েকজন কর্মী, সমর্থক।  কয়েকজন এসে গৌতম মিত্রর খোঁজ করেন। সেই সময়ে সেখান দিয়ে আসছিলেন সিপিএম নেতা।  প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, গৌতম মিত্রকে সামনে পেয়ে কোনও কথার বলার সুযোগ না দিয়ে বাঁশ, লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর শুরু করে বিশ্বজিৎ কর্মকার ওরফে ছোটকা ও তার দলবল।  আছাড় দিয়ে মাটিতে ফেলে দেওয়া হয় তাঁকে।  মাথায় গুরুতর আঘাত লাগে গৌতম মিত্রর। সেই অবস্থায় তাঁকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়।  মাথা ব্যথা, বমি শুরু হওয়ায় মেদিনীপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয় গৌতম মিত্রকে। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে এসএসকেএমে নিয়ে যাওয়া হয়।  সেখানেই বুধবার রাতে মৃত্যু হয় তাঁর। গণ্ডগোলের শুরু সোমবার।  বিশ্বজিৎ কর্মকারের ঘনিষ্ঠ শুভঙ্কর দে ও শম্ভু দে-র মধ্যে বচসা হয়।  মারধর করা হয় শম্ভূকে ।  প্রথমে অভিযোগ নেয়নি কোতয়ালি থানা। পরে  আদালতের নির্দেশে অভিযোগ দায়ের হয়। এই ব্যাপারে শম্ভূকে সাহায্য করেন গৌতম মিত্র। সিপিএমের অভিযোগ, এই ঘটনার বদলা নিতে প্রতিহিংসা বশে পিটিয়ে খুন করা হয় গৌতম মিত্রকে। বিশ্বজিত কর্মকার, ইন্দ্রজিৎ কর্মকার ও শুভঙ্কর দে-র নামে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে নিহত নেতার পরিবার।

    First published:

    Tags: Bengali News, Cpim, CPIM Leader Beaten To Death, CPIM Leader Thrashed To Death, TMC

    পরবর্তী খবর