দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

নিজের মুকুট তুলে দিচ্ছেন দেবী স্বাস্থ্যকর্মীর মাথায়, মুর্শিদাবাদের পুজো নজর কাড়ল অভিনবত্বে!

নিজের মুকুট তুলে দিচ্ছেন দেবী স্বাস্থ্যকর্মীর মাথায়, মুর্শিদাবাদের পুজো নজর কাড়ল অভিনবত্বে!

এ বছর যেন পুজোর ঢাকের আওয়াজে সেই অনেক দিনের চেনা বোল থেকেও নেই!

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: এ বছর যেন পুজোর ঢাকের আওয়াজে সেই অনেক দিনের চেনা বোল থেকেও নেই! ষষ্ঠীর বোধন থেকে দশমীর অপরাজিতা পূজা, সর্বত্রই সে জানিয়ে রাখছে কেবল একটাই কথা- সাবধান, সাবধান! বিশ্ব রয়েছে মহাত্রাসে, অতিমারীর মহাগ্রাসে!

সেই দিক থেকেই চলতি বছরের দুর্গা পূজায় সেরার শিরোপাটি অনায়াসে দাবি করতে পারে মুর্শিদাবাদের এক ক্লাব। সেই ক্লাবের পুজো অভিনবত্বের নিরিখে নজর কেড়েছে সবারই। কেন না, পুজোর উদ্যোক্তারা সরাসরি তুলে এনেছেন এই মারীকবলিত পৃথিবীর এক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিকটিকে- বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্যকর্মীরাই ঈশ্বরের প্রতিভূ! তাঁরা নিরলস পরিশ্রম না করলে জনসাধারণ স্বস্তিতে থাকতে পারতেন না! এ বছর ঠিক যেমন উৎসবের অতি পরিচিত রূপটি চোখে পড়েনি কারও, তেমনই মুর্শিদাবাদের এই পুজোয় দেখা যায়নি দেবী দুর্গার দশপ্রহরণধারিণী যোদ্ধৃরূপ। দেবী এই ক্লাবের পুজোয় দশভুজা তো বটেই, তবে তাঁর হাত একেবারে শূন্য- সেখানে কোনও অস্ত্র শোভা পাচ্ছে না! দেখা যাচ্ছে যে সিংহবাহিনী এই দেবীর পদপ্রান্তে মহিষাসুরও অনুপস্থিত, তার বদলে নম্র ভাবে সেখানে স্থান করে নিয়েছেন এক স্বাস্থ্যকর্মী। আর দেবীর দুই হাতে ধরা এক মুকুট- যেন নিজের মাথার মুকুটটিই তিনি খুলে পরিয়ে দিচ্ছেন এই স্বাস্থ্যকর্মী তথা সব স্বাস্থ্যকর্মীর শিরে!

বুঝে নিতে অসুবিধা হয় না যে সমসময় তার দাবি নিয়ে সরাসরি ধরা দিয়েছে পুজোর উদ্যোক্তাদের পরিকল্পনায়। যার জেরে তাঁদের সাধুবাদ অবশ্যই প্রাপ্য। কিন্তু সব শেষেও কিছু প্রশ্ন থেকেই যায়। এর মধ্যেই দুর্গা পূজা এ বছরে আতঙ্কের আবহ তৈরি করেছে। অসচেতন অনেকেই ভিড় করেছেন মণ্ডপ থেকে মণ্ডপে, তাঁদের ঠাকুর দেখার প্রবল উৎসাহ বাড়িয়ে দিয়েছে কোভিড ১৯-এর সংক্রমণ। শোনা যাচ্ছে যে পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে শুধু কলকাতাতেই সপ্তমীর মধ্যে করোনা-রোগীর সংখ্যা পৌঁছে গিয়েছে ৪০০০-এর কাছাকাছি। পরিসংখ্যান বলছে যে এর মধ্যেই করোনার সঙ্গে যুদ্ধে প্রাণ দিয়েছেন ৬০ জন স্বাস্থ্যকর্মী। অনুমান বলছে এই অবস্থা যদি চলতেই থাকে, সে ক্ষেত্রে এই বঙ্গের স্বাস্থ্য পরিষেবা সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হতে সময় লাগবে না! তা হলে?
Published by: Akash Misra
First published: October 26, 2020, 10:51 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर