Home /News /south-bengal /

Covid In Burdwan: রবি ও বৃহস্পতিবার বন্ধ দোকান, পাইকারি বাজার...আগামিকাল থেকে আর কী কী বিধিনিষেধ জারি বর্ধমানে?

Covid In Burdwan: রবি ও বৃহস্পতিবার বন্ধ দোকান, পাইকারি বাজার...আগামিকাল থেকে আর কী কী বিধিনিষেধ জারি বর্ধমানে?

বর্ধমানে টানা সাতদিন বন্ধ থাকবে চায়ের দোকান। বুধবার থেকে এই নির্দেশ কার্যকর হবে। আআর কী কী বিধিনিষেধ জারি হচ্ছে?

  • Share this:

#বর্ধমান: খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ভয়াবহ আকার নিয়েছে করোনার তৃতীয় ঢেউ। পশ্চিমবঙ্গের করোনা গ্রাফ বেশ চিন্তাজনক! কলকাতার অবস্থা সবচেয়ে শোচনীয় হলেও বর্ধমানের করোনা পরিস্থিতিও কম উদ্বেজগনক নয় (Covid In Burdwan)। ইতিমধ্যেই বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের সিনিয়র চিকিৎসকদের অধিকাংশই করোনা আক্রান্ত, স্বাভাবিকভাবেইপরিষেবা সামাল দেওয়ার ক্ষেত্রে বাড়তি দায়িত্ব নিতে হচ্ছে জুনিয়র চিকিৎসকদেরই।

করোনা সংক্রমণে লাগাম টানতে তৎপর বর্ধমান জেলা প্রশাসন। জারি হয়েছে কড়া বিধিনিষেধ। বর্ধমানে টানা সাতদিন বন্ধ থাকবে চায়ের দোকান। বুধবার থেকে এই নির্দেশ কার্যকর হবে (Covid In Burdwan)।

আরও পড়ুন: মেঘলা আকাশ, ঝিরঝিরে বৃষ্টি! ধানের পর এবার আরেক ফসল ব্যাপক ক্ষতির মুখে

সপ্তাহে ২ দিন রবিবার ও বৃহস্পতিবার জেলার সমস্ত দোকান, পাইকারি বাজার বন্ধ থাকবে। এই ২ দিন সকাল নটা থেকে বেলা বারোটা পর্যন্ত খোলা থাকবে শুধুমাত্র মিষ্টির দোকান।

সোম, মঙ্গল, বুধ, শুক্র, ও শনিবার সমস্ত দোকান সকাল ৮-টা থেকে রাত ৮-টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

সবজি, মাংস ও মাছের বাজার সকাল ৮-টা থেকে দুপুর ১২-টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

পাইকারি সবজি ও মাছের বাজার ভোর ৫-টা থেকে সকাল ৮-টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

রেস্তোরাঁ খোলা থাকবে রাত ৯ টা পর্যন্ত।

রাস্তার ধারে থাকা কোনও চায়ের দোকান বা খাবারের ষ্টল আগামী ৭ দিন বন্ধ থাকবে৷

প্রত্যেক দোকানের সামনে " No mask No sell" ব্যানার অবশ্যই রাখতে হবে। কোভিড প্রতিরোধে দূরত্ব বিধির নির্দিষ্ট নিয়ম না মেনে, মাস্ক না পরে অথবা দোকানে ভিড় থাকলে ওই দোকানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: সিনিয়ররা করোনা আক্রান্ত, বর্ধমান মেডিক্যালে এখন ভরসা জুনিয়র চিকিৎসকরাই

পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। শুক্রবার পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৫১২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। শনিবার আক্রান্ত হন ৫১৩ জন। তার পরের ২৪ ঘণ্টায় এই জেলায় ৬২৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এই জেলায় এদিন পর্যন্ত ৪৩ হাজার ৭২৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৪০ হাজার ৯০৫ জন ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে এই জেলায় ৪৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে। তবে বর্তমানে অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা গত এক সপ্তাহে অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। সোমবার পর্যন্ত পূর্ব বর্ধমান জেলায় ২৩২৩ জন অ্যাক্টিভ করোনা আক্রান্ত রয়েছেন। তবে তাদের বেশিরভাগেরই বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা চলছে।

পূর্ব বর্ধমান জেলায় সদর শহর বর্ধমানে করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছে সবচেয়ে বেশি। এছাড়াও কালনা কাটোয়া মেমারি পৌরসভা এলাকাতেও উদ্বেগজনক ভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। পিছিয়ে নেই গ্রামীণ এলাকাগুলিও। বর্ধমান শহর লাগোয়া গ্রামীণ এলাকা যেমন, ভাতার, গলসি, কেতুগ্রাম পূর্বস্থলী সর্বত্রই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময় ভিড় থেকে সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা খুব বেশি।

Published by:Rukmini Mazumder
First published:

Tags: Burdwan

পরবর্তী খবর