Home /News /south-bengal /
বর্ধমান শহরের বাইরে তৈরি হচ্ছে COVID-19 হাসপাতাল

বর্ধমান শহরের বাইরে তৈরি হচ্ছে COVID-19 হাসপাতাল

  • Share this:

#বর্ধমান:  বর্ধমান শহরের বাইরে তৈরি হচ্ছে করোনা হাসপাতাল। গাংপুরের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালকে COVID-19 হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তুলছে প্রশাসন। প্রয়োজনে সেখানের ডাক্তার ও নার্সদেরও করোনা চিকিৎসার কাজে লাগানো হবে। এছাড়াও বর্ধমান শহরের শেষ প্রান্তে আরও একটি বেসরকারি হাসপাতালকে COVID-19 হাসপাতাল হিসেবে কাজে লাগানোর পরিকল্পনা নিয়েছে প্রশাসন। এছাড়াও জেলার প্রতিটি ব্লকে এক হাজার বেডের কোয়ারান্টিন সেন্টার তৈরি করা হচ্ছে।

বুধবার পূর্ব বর্ধমান জেলায় এসে করোনা আক্রান্তদের  চিকিৎসার পরিকাঠামো খতিয়ে দেখেন করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত রাজ্য স্তরের টাস্ক ফোর্সের সদস্য রাজেশ সিনহা।  এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন ও জেলা স্বাস্থ্য দফতরের প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক করেন তিনি।  কেউ করোনা ভাইরাসেআক্রান্তে হলে কী কী ব্যবস্থা নিতে হবে তা নিয়ে  বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, গোদার কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালের পরিকাঠামো দেখা হয়েছে। সচিব রাজেশ সিনহা ছাড়াও  জেলাশাসক বিজয় ভারতী, সিএমওএইচ প্রণব রায় সহ জেলা প্রশাসনের কর্তারা সেখানে যান। আরও দু’টি বেসরকারি হাসপাতালের পরিকাঠামোও খতিয়ে দেখা হয়।

জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান,তিনটি বেসরকারি হাসপাতালের পরিকাঠামো দেখা হয়েছে। কর্মচারী, চিকিৎসকের অনুপাত, আইসিইউ, ভেন্টিলেশন এ সব তথ্য নেওয়া হয়। তার ভিত্তিতে  গাংপুরের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালকে COVID-19 হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রয়োজন হলে পরবর্তী সময়ে স্বাস্থ্য-উপনগরীর ভিতর একটি হাসপাতালও নেওয়া হবে বলে ঠিক হয়েছে।জানা গিয়েছে, ওই দু’টি হাসপাতালে বর্তমানে রোগীর সংখ্যা দশের নীচে রয়েছে। প্রয়োজনে ওই সব রোগীকে  বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।  শহরের ঘন বসতি এলাকায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া আটকাতেই করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য শহরের বাইরে বা প্রান্তের বেসরকারি হাসপাতাল বাছা হয়েছে। প্রয়োজনে সেখানের ডাক্তার ও নার্সদের চিকিৎসার কাজে লাগানো হবে। দরকার পড়লে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক নার্সরাও সেখানে যাবেন।

Saradindu Ghosh

Published by:Elina Datta
First published:

Tags: Corona, Corona outbreak, Corona state lock down, Coronavirus, COVID-19

পরবর্তী খবর