বাগানবাড়িতে ব্য়াগবন্দি দম্পতির নলি কাটা দেহ! নয়া তথ্য সিআইডির হাতে 

বাগানবাড়িতে ব্য়াগবন্দি দম্পতির নলি কাটা দেহ! নয়া তথ্য সিআইডির হাতে 
প্রতীকী ছবি

কীভাবে পরিচয় হল বিশালদের সঙ্গে আলপনার? সিআইডি সূত্রে খবর, আলপনাদের বাড়ির পাশে মাঠে খেলতে আসত কমবয়সী বিশাল ও সৌরভ | সেখান থেকেই বিশাল এর সঙ্গে পরিচয় আলপনার, ও ধীরে ধীরে সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল নিঃসন্তান আলপনার সঙ্গে |

  • Share this:

    #কলকাতা:  নরেন্দ্রপুর  খেয়াদহতে জোড়া  খুনে ধৃত সৌরভ মণ্ডলকে জেরা করে সিআইডির  হাতে  চাঞ্চল্যকর নয়া  তথ্য  | তদন্তকারীদের সূত্রে  খবর,আলপনা  ও তার স্বামী প্রদীপ বিশ্বাসকে খুনের ঘটনার পিছনে মূল কারণ আলপনার সঙ্গে সৌরভের বন্ধু বিশাল বৈরাগীকে ঘনিষ্ট অবস্থায়  দেখে ফেলেছিল আলপনার স্বামী| সেই নিয়ে বিশালকে চড় থাপ্পড়  মেরেছিলেন আলপনার স্বামী প্রদীপ | সেই থেকে প্রতিহিংসা জন্মায় এবং তৈরি হতে থাকে প্রদীপকে হত্যা করার ছক| বিশাল বৈরাগী এখনও পলাতক | কিন্তু সৌরভ কেন হত্যা করল?

    সিআইডি সূত্রের খবর, সৌরভ জেরায়  জানায় সে  সোনারপুর কলেজে কলা বিভাগের ছাত্র ছিল | কিন্তু হাত খরচ  বাবদ টাকার যোগান পেতেই সঙ্গ দোষে পড়ে | বন্ধু  বিশাল বৈরাগী সঙ্গে সৌরভ মণ্ডলও  জড়িয়ে পড়ে অন্ধকারের  দুনিয়াতে | কম  পরিশ্রমে  বেশি পয়সা, এই স্ট্রাটেজিতে চলতে গিয়েই  বিপদ বাড়ায় সৌরভ  |  মোটরসাইকেল চুরি, মোবাইল চুরিতে থেমে থাকেনি সেই অন্ধকার জগতের কাজ৷ হত্যার ঘটনাতেও পাকা করে নেয় হাত | এমনকি গোয়েন্দা সূত্রের খবর, এর আগে বিভিন্ন অসামাজিক  কাজে লিপ্ত  থাকলেও কোনোদিনই  পুলিশের নাগালে আসেনি সে | প্রতিহংসা ছাড়াও ছিল পয়সার লোভ৷  সৌরভরা ভেবেছিল বিশাল বাগান বাড়ির মালিক আলপনারা  | ফলে তাদের বাড়িতে ঢুকতে পারলে মূল্যবান  জিনিস, টাকা পয়সা পাওয়া যেতে পারে | কিন্তু সেই আশা ব্যর্থ হয় | কারণ বাড়িতে তেমন টাকা গয়না কিছুই ছিল না | ফলে সৌরভ বিশালদের আরও রেগে যায়| জানতে পারে বাড়ির মালকি আলপনারা  নন, এর  ৫জন কর্তা রয়েছে |

    কীভাবে পরিচয়  হল বিশালদের  সঙ্গে আলপনার? সিআইডি  সূত্রে খবর, আলপনাদের  বাড়ির পাশে মাঠে খেলতে আসত কমবয়সী বিশাল ও সৌরভ | সেখান থেকেই বিশাল এর সঙ্গে পরিচয়  আলপনার, ও ধীরে ধীরে  সম্পর্ক  গড়ে উঠেছিল নিঃসন্তান আলপনার সঙ্গে | উদ্দেশ্য ছিল প্রদীপকে হত্যা করার | কিন্তু  আলপনা  ছিল একমাত্র সাক্ষী, স্বামীকে হত্য়া না করার অনুরোধ করেন তিনি | তবে প্রদীপকে খুনের পর আল্পনাকে খুন করে ব্য়াগে ভরে অন্য জায়গায় ফেলে দেওয়ার কথা  ছিল | কিন্তু বাইরে বৃষ্টি ও ব্য়াগ ভারি হয়ে যাওয়াতে সেই প্ল্য়ান সম্ভব হয়নি৷


    তদন্তকারীদের  সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৯ সালে ৩০ জুলাই  নরেন্দ্রপুর থানার তিউরিয়াতে একটি বাগান বাড়ি থেকে প্রদীপ বিশ্বাস ও তার স্ত্রী  আলপনা বিশ্বাস নামে দম্পতির গলা নলি কাটা দেহ উদ্ধার হয় | দেহ গুলি  ব্যাগে ভরা ছিল | নিজের দোষ সৌরভ স্বীকার করে এবং  বন্ধু বিশাল বৈরাগীর কথাও উল্লেখ করে | বিশাল পলাতক|  তার সঙ্গে ওই বাগানবাড়ির  আলপনার   সম্পর্ক ছিল | কিন্তু স্বামী প্রদীপ বিশ্বাস বাধা হয়ে দাড়াচ্ছিল | ফলে বিশাল টার্গেট করে প্রদীপকে | এরপর পূর্ব পরিকল্পনা করেই খুন করে তারা|নরেন্দ্রপুর থানা ঢালুয়া থেকে কিছু দিন আগে সৌরভকে চুরির  ঘটনায়  গ্রেফতারের পর সিআইডি জেরায় নয়া তথ্য |

    ARPITA HAZRA
    Published by:Pooja Basu
    First published: