COVID19: করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বীরভূমেও আক্রান্ত বহু, ভোট প্রচার চলছে তার নিজের ছন্দেই

এই অঙ্ক কিন্তু কমার বদলে বেড়েই চলেছে প্রতি মুহূর্তে।

এই অঙ্ক কিন্তু কমার বদলে বেড়েই চলেছে প্রতি মুহূর্তে।

  • Share this:

#বীরভূম: বীরভূম জেলায় কোরোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে দিনের পর দিন। ১৩ ই এপ্রিল ২০২১-এ বীরভূম স্বাস্থ্য জেলায় ৩৭৭ জন ও রামপুরহাট স্বাস্থ্য জেলায় ১০৫ জন কোরোনাতে আক্রান্ত হয়েছেন। শুধুমাত্র এপ্রিল মাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এসে দাঁড়িয়েছে  ৩৪০৯ জনে। ২০২১এর ফ্রেব্রুয়ারী-মার্চ মাস করে করোনার টিকাকরণ শুরু হয়। প্রথম প্রথম অনেকেই এই টিকা নিতে দ্বিধা বোধ করলেও পরে ধীরে ধীরে কিন্তু সবাই এগিয়ে এসেছে এই টিকা গ্রহণের জন্য । টিকা প্রদান একদিকে চললেও কিন্তু করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটাও এসে দাঁড়িয়েছে বিরাট অঙ্কে।  এই অঙ্ক কিন্তু কমার বদলে বেড়েই চলেছে প্রতি মুহূর্তে।

বীরভূমে বিধানসভা ভোটের তারিখও ক্রমশ এগিয়ে আসছে৷  আগামী ২৯শে এপ্রিল ভোটের তারিখ বীরভূমের ১১ টি বিধানসভা এলাকায়। এই তারিখকে মাথায় রেখেই কিন্তু সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলোর প্রচারও তুঙ্গে। ইতিমধ্যেই দেওয়াল লিখন শেষ৷ জায়গায় জায়গায় উড়ছে বিভিন্ন দলের দলীয় পতাকা ৷ ঢাক ঢোল বাজিয়ে জাকজমক ভাবে চলছে দলীয় কর্মীদের নিয়ে প্রচার৷  সমর্থকদের নিয়ে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে জন সংযোগ ও ভোট প্রচার চলছে। বিভিন্ন জায়গায় চলছে ছোট ছোট জনসভা। কিন্তু এই প্রচার ও সভা কোনও রকম কোরোনা বিধি ছাড়াই চলছে অনায়াসে৷ কোনও ভাবেই মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব । বিভিন্ন জায়গায় দেখা যাচ্ছে প্রার্থীর মুখেই নেই মাস্ক। আবার কখনও কখনও দেখা যাচ্ছে প্রার্থীর মুখে মাস্ক থাকলেও মাস্ক নেই তার সঙ্গে থাকা কর্মী সমর্থকদের মুখে। এই দৃশ্য প্রসঙ্গে বিভিন্ন মন্তব্য করছেন সাধারণ মানুষ। 'এই করোনা পরিস্থিতিতে মিটিং, মিছিল, সভা হতে পারলে, স্কুল - কলেজ কেন খুলছে না' এমন অনেক মন্তব্য করছে জনতা।

গতকাল, মঙ্গলবার, হাইকোর্ট নির্দেশ দেয় মাস্ক , স্যানিটিজার ব্যবহার করে সামাজিক দূরত্ব মেনে ভোট প্রচার ও সভা চালাতে । এই নির্দেশ জারির পর প্রচার ও সভাগুলিতে প্রার্থীরা মাস্ক ব্যবহার করলেও কেউই মাস্ক ও দূরত্ব মানছেন না। করোনা বিধি না মেনেই চলছে সভা, মিটিং, মিছিল। সব থেকে খারাপ অবস্থা বীরভূমের রামপুরহাট মহকুমার বিভিন্ন জায়গার৷  সেখানে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

Published by:Pooja Basu
First published: