corona virus btn
corona virus btn
Loading

পূর্ব বর্ধমান জেলায় কোথায় কোথায় রয়েছে কনটেইনমেন্ট জোন ! জেনে নিন

পূর্ব বর্ধমান জেলায় কোথায় কোথায় রয়েছে কনটেইনমেন্ট জোন ! জেনে নিন

কনটেইনমেন্ট জোনের বাইরে ৫ কিলোমিটার পরিধির এলাকা বাফার জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলার কোন কোন এলাকা কন্টেইনমেন্ট জোনের মধ্যে পড়ছে জানেন কি? এই মুহূর্তে পূর্ব বর্ধমান জেলায় কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা তিনটি। পূর্ব বর্ধমান জেলায় খণ্ডঘোষের বাদুলিয়াগ্রাম, বর্ধমান শহরের সুভাষপল্লী এলাকা ও মেমারি পুরসভা এলাকার সোমেশ্বর তলা ও তার আশপাশ এলাকাকে কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কনটেইনমেন্ট জোনের বাইরে ৫ কিলোমিটার পরিধির এলাকা বাফার জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

জেলায় প্রথম খন্ডঘোষের বাদুলিয়া গ্রামে করোনা আক্রান্তের হদিস মিলেছিল। কলকাতার মেটিয়াবুরুজ থেকে এক ব্যক্তি লকডাউন চলাকালীন মোটর সাইকেলের বাদুলিয়া গ্রামে বাড়ি ফেরেন। সপ্তাহ খানেক পর তিনি জ্বর সর্দিতে আক্রান্ত হলে হাসপাতালে যান। সেখান থেকে তাকে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাঁর নমুনায় করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এলে তাঁর সংস্পর্শে আসা বাকিদেরও কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিয়ে গিয়ে নমুনা পরীক্ষা করানো হয়। সেখানে তাঁর ৯ বছরের ভাইঝির দেহেও করোনার সংক্রমণ পাওয়া যায়। বর্তমানে তাঁরা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। নতুন করে কেউ আর করোনা আক্রান্ত না হলে ওই এলাকা থেকে বিধি নিষেধ উঠে যাবে।

এরপর বর্ধমানের সুভাষপল্লী এলাকায় করোনা আক্রান্ত হন এক নার্স। তিনি কলকাতায় কর্মরত ছিলেন। বর্ধমানের সুভাষপল্লীতে বাড়ি ফেরার পর তিনি অসুস্থতা বোধ করলে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যান। সেখানে নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নমুনায় তাঁর করোনা আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ মেলে। বর্তমানে তিনি দুর্গাপুরের করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাঁর সংস্পর্শে আসা সকলকে বর্ধমানের দু নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার জেরে সুভাষপল্লী এলাকাকে কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে। শনিবার দমকল কর্মীরা পিপিই কিট পরে এলাকা জীবাণুমুক্ত করার কাজ করেন। এলাকাকে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষনা করার পাশাপাশি বাসিন্দাদের সচেতন করতে মাইকে প্রচার চালাচ্ছে পুলিশ। বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়েছে এলাকা। বাসিন্দাদের বাইরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। বাইরের কেউ এলাকায় প্রবেশ করতে পারছেন না।

এরপর শুক্রবার কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয় মেমোরি সোমেশ্বর তলা ও তার আশপাশ এলাকাকে। এলাকার এক যুবক কলকাতায় চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন। তিনি একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। সেখানে করোনা পরীক্ষার জন্য তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। বাড়ি ফেরার পর শুক্রবার তাঁর রিপোর্ট করোনা পজিটিভ বলে খবর আসে। এরপর ওই যুবককে দুর্গাপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার সংস্পর্শে আসা পরিবারের সদস্যদেরও করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Bangla Editor
First published: May 9, 2020, 6:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर