corona virus btn
corona virus btn
Loading

দেশের বিভিন্ন জায়গায় আটকে বীরভূমের শ্রমিকরা, ফিরিয়ে নিয়ে আসার আবেদন

দেশের বিভিন্ন জায়গায় আটকে বীরভূমের শ্রমিকরা, ফিরিয়ে নিয়ে আসার আবেদন

কিন্তু দেশজুড়ে লকডাউন হয়ে পড়ায় তারা আর ফিরতে পারেননি।

  • Share this:

#বীরভূম: আশঙ্কায় দিন কাটছে ভিন রাজ্যে আটকে পড়া বীরভূমের বাঙালি শ্রমিকদের। এরকমভাবে চিকিৎসা করাতে যাওয়া অজস্র বাঙালি আটকে রয়েছেন ভিন রাজ্যগুলিতে। যারা এই মুহূর্তে চরম সংকটে পড়েছেন, যেহেতু তাদের কাছে এখন কোন কাজ নেই। আবার যারা চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন তারা চিকিৎসা খরচ ছাড়া হয়তো হাতে কিছু পরিমাণ টাকা নিয়ে গেছিলেন। কিন্তু দেশজুড়ে লকডাউন হয়ে পড়ায় তারা আর ফিরতে পারেননি। শ্রমিক থেকে চিকিৎসা করাতে যাওয়া ওই মানুষগুলির টাকাপয়সা ধীরে ধীরে শেষ হতে শুরু করেছে। জিনিসপত্র কিনতে ছোটাছুটি করতে হচ্ছে অজানা জায়গায়। এমনকি বাড়ি থেকে হওয়ার উপরেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। যে কারণে আশঙ্কায় দিন কাটছে, যেটুকু হাতে আছে সেটুকু শেষ হয়ে গেলে আগামী দিনে কি হবে?

বীরভূমের সিউড়ির পুরন্দরপুরের ৩০ জন শ্রমিক আটকে হায়দ্রাবাদে। বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের গড়গড়া গ্রামের জয়ন্ত ঘোষ ও তার পরিবারের। তারা গত ফেব্রুয়ারি মাসের ২ তারিখে তাদের সন্তান ৯ বছরের রূপমের চিকিৎসা করাতে যান ব্যাঙ্গালোর। রূপম হাঁটাচলা করতে পারত না। সেখানে তার অপারেশন হয়, সব রকম চিকিৎসা করাতে তাদের সময় লাগে ২০ মার্চ পর্যন্ত। তারপরেই জনতা কারফিউ, তারপরেই লকডাউন। এখন তারা আটকে রয়েছেন ব্যাঙ্গালোরের কাডুগুডি এলাকায়।

একইভাবে আরও পাঁচজন শ্রমিক যারা কাজের জন্য গিয়েছিলেন দক্ষিণ কর্নাটকে। সেখানে আটকে পড়েছেন বীরভূম ও নদীয়ার গৌতম সাহা, অসিত সাহা, সুপ্রিয় মন্ডল, কিশোর দাস, আরিয়ান চ্যাটার্জী। লকডাউনের পরিস্থিতিতে তারা কাজ হারিয়ে গৃহবন্দী। বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না। কাজ হারিয়ে হাতে থাকা টাকা পয়সাও শেষের দিকে। তারা এই মুহূর্তে রয়েছেন দক্ষিণ কর্ণাটকের জর্ড কৃষ্ণপুরে।

তাদের অভিযোগ, "আমরা যে সংস্থায় কাজ করতে এসেছিলাম লকডাউনের কারণে সেই কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। হাতে টাকা পয়সা নেই। এখানকার পুলিশ কোনমতেই বাজারে বের হতে দিচ্ছে না। এমনকি আমরা ভিন রাজ্যের হওয়ায় রেশন বা অন্যান্য ব্যবস্থার কোনো রকম সুবিধা পাচ্ছিনা। পরিস্থিতি এমন দিকে যাচ্ছে আমাদের অনাহারে দিন কাটাতে হবে।"এইভাবে আটকে পড়া এই সকল শ্রমিক ও চিকিৎসা করাতে যাওয়া মানুষগুলি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সাহায্য প্রার্থনা করেছেন। তাদের প্রার্থনা, মুখ্যমন্ত্রী যেনতেন প্রকারে তাদের যেন উদ্ধার করেন। যদিও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইতিমধ্যেই দেশের ১৮টি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের চিঠি দিয়েছেন তাদের রাজ্যগুলিতে আটকে পড়া বাংলার মানুষগুলির যেন একটু হলেও দেখভাল করেন।

Supratim Das

First published: March 28, 2020, 10:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर