corona virus btn
corona virus btn
Loading

পশ্চিম বর্ধমানের সব হাসপাতালে বিশেষ করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরির নির্দেশ

পশ্চিম বর্ধমানের সব হাসপাতালে বিশেষ করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরির নির্দেশ

পশ্চিম বর্ধমান জেলায় করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়তে থাকায় সব হাসপাতালে বিশেষ করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হল

  • Share this:

#বর্ধমান: পশ্চিম বর্ধমান জেলায় করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়তে থাকায়  সব হাসপাতালে বিশেষ করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হল। সব বেসরকারি হাসপাতালে দ্রুত এই ওয়ার্ড চালু করা হচ্ছে।আগামিকাল, শুক্রবারের মধ্যেই প্রতিটি  বেসরকারি হাসপাতালে ন্যূনতম ৫০ বেডের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরির নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ'ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের তরফে সব রকম সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। মেডিক্যাল কলেজেও থাকবে বিশেষ করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড। করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতেই এই পদক্ষেপ বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

পশ্চিম বর্ধমান জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় এই জেলায় ২৯ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুর্গাপুরে আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ জন। আসানসোল মহকুমায় নতুন করে ১৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়াও, রানীগঞ্জে ২ জনের রিপোর্ট করিনা পজিটিভ এসেছে। দুর্গাপুরে আক্রান্তদের মধ্যে এক অ্যাম্বুল্যান্স চালক রয়েছেন, রয়েছেন একজন স্যুইপারও।  দুর্গাপুরে নতুন করে  দুটি এলাকাকে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে। সেখানে কড়া লকডাউন  চালু করা হয়েছে।

এমনিতেই আসানসোল মহকুমায় সব গুরুত্বপূর্ণ বাজার বেলা ১ টার পর থেকে বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ জারি করা হয়েছে। এছাড়াও, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পুলিশি নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। দুর্গাপুরে বেসরকারি সনকা হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা চালানো হচ্ছে। করোনা উপসর্গ থাকলে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল রোগীদের ফিরিয়ে দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছিল। এ'ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে  বিভিন্ন বেসরকারি ও সরকারি হাসপাতালের আধিকারিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠক হয়, আলোচনায় ছিলেন জেলা প্রশাসনের পদস্থ আধিকারিকরা।

বৈঠকে বলা হয়েছে, বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হওয়া সব রোগীর করোনা পরীক্ষা করাতে হবে। রিপোর্ট করোনা পজিটিভ এলে সেইসব রোগীদের হাসপাতাল থেকে অন্য কোথাও রেফার করা যাবে না। তাঁদের সেই হাসপাতালে রেখেই চিকিৎসা করাতে হবে। সেজন্যেই প্রতিটি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালকে পঞ্চাশ  শয্যার বিশেষ করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরি রাখতে বলা হয়েছে।  সেখানে করোনা আক্রান্তদের ভর্তি রেখে চিকিৎসা করতে হবে। প্রয়োজনে জেলা প্রশাসন তথা জেলা স্বাস্থ্য দফতর  তাদের সহযোগিতা করবে বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Rukmini Mazumder
First published: July 24, 2020, 12:06 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर