corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা সংক্রান্ত অভিযোগ জানাতে গ্রিভান্স সেল খুলছে বর্ধমান জেলা প্রশাসন

করোনা সংক্রান্ত অভিযোগ জানাতে গ্রিভান্স সেল খুলছে বর্ধমান জেলা প্রশাসন
Representative image

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় এবার গ্রিভান্স সেল খোলার পরিকল্পনা নিল পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন

  • Share this:

#বর্ধমান: করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় এবার গ্রিভান্স সেল খোলার পরিকল্পনা নিল পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন। খুব তাড়াতাড়ি করোনা সংক্রান্ত এই জন অভিযোগ কেন্দ্র চালু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন  জেলাশাসক বিজয় ভারতী ।জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের অফিসে এই গ্রিভান্স সেল খোলা হবে। দিনরাত  সর্বক্ষণ তা চালু থাকবে। জেলার বাসিন্দারা ফোন করে সেখানে তাঁদের সমস্যার কথা জানাতে পারবেন।

পূর্ব বর্ধমান জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। প্রায় ২ হাজারের কাছাকাছি বাসিন্দা ইতিমধ্যেই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেও প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছে। অনেক ক্ষেত্রেই স্থানীয় প্রশাসন, জেলা স্বাস্থ্য দফতরের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। অনেকেরই অভিযোগ, লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও  সঠিক সময়ে রিপোর্ট জানানো হচ্ছে না। ফলে উৎকণ্ঠার মধ্যে থাকতে হচ্ছে বাসিন্দাদের। রিপোর্ট জানতে ৬-৭ দিন পার হয়ে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, কোনও এলাকায় করোনা আক্রান্তের হদিশ মিললেও আক্রান্তকে করোনা হাসপাতাল বা সেফ হোমে নিয়ে যেতে অনেক দেরি করা হচ্ছে। তার সংস্পর্শে আসা বাসিন্দাদের  খুঁজে বের করে তালিকা তৈরি করা হচ্ছে না সবসময়। প্রাথমিক সংস্পর্শে আসা পুরুষ-মহিলাদের নমুনা পরীক্ষা ঠিকঠাকভাবে হচ্ছে না বলে অনেক জায়গা থেকেই জেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ আসছে।

কোনও এলাকায় করোনা আক্রান্তের হদিশ মিললে সেই এলাকাকে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করছে জেলা প্রশাসন। সেই কন্টেইনমেন্ট জোন স্যানিটাইজ করা বা সেখানে জীবাণূনাশক ছড়ানো জরুরি। অনেক ক্ষেত্রে সে'সব কাজে গাফিলতি থেকে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। করোনা আক্রান্তকে চিকিৎসার আওতায় নিয়ে আসা হলেও তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের প্রতি নজরদারিতে অভাব থেকে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠছে।

পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী জানান, আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের পরীক্ষা, আক্রান্তের বাড়ি, আশপাশের এলাকা স্যানিটাইজ করার কাজ অনেক সময় সঠিকভাবে পালন করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ আসছে। সেইসব সমস্যা জানতে পারা মাত্র যাতে পদক্ষেপ করা যায় তা নিশ্চিত করতেই এই গ্রিভান্স সেল খোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে একটি বিশেষ ফোন নম্বর জেলার বাসিন্দাদের দেওয়া হবে। সেই নম্বরে ফোন করে করোনা সংক্রান্ত সমস্যার কথা জানানো যাবে।

SARADINDU GHOSH

Published by: Rukmini Mazumder
First published: August 20, 2020, 11:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर