দক্ষিণবঙ্গ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

পুজোর মুখে ফের হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ! বর্ধমানে আক্রান্ত ৭৫০, মৃত ২৩

পুজোর মুখে ফের হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ! বর্ধমানে আক্রান্ত ৭৫০, মৃত ২৩

উৎসবের মুখে বর্ধমান শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় চিন্তিত জেলা প্রশাসন।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: হাতেগোনা আর মাত্র কয়েকটা দিন। তারপরেই বাঙালির বছরের সেরা উৎসব দুর্গাপুজো। সেই উৎসবের মুখে বর্ধমান শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় চিন্তিত জেলা প্রশাসন। পূর্ব বর্ধমান জেলার মধ্যে সদর শহর বর্ধমানেই আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। স্বাস্থ্য দপ্তরের কপালে ভাঁজ ফেলেছে এই শহরে মৃত্যু সংখ্যাও।তারই মধ্যে জোরকদমে শুরু হয়েছে পুজোর বাজার। শহরের বাজার এলাকায় এখন থিকথিকে ভিড়।বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকছে না। মাস্কে মুখ ঢাকছেন না অনেকেই। এর পরিণামে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা আরও অনেকটাই বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে জেলা প্রশাসন।

গত ২৪ ঘণ্টায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় নতুন করে ৬৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৬৪ জন উপসর্গহীন। এই নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। এ দিন পর্যন্ত ৫০২৯ জন এই জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৪৪৭৪ জন চিকিৎসার পর সুস্থ হয়েছেন। বর্তমানে ৪৮২ জন করোনা অ্যাকটিভ রয়েছেন। তাঁদের কোভিভ হাসপাতাল, সেফ হোম, হোম আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা চালানো হচ্ছে। এ দিন পর্যন্ত জেলায় ৭৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে পাওয়া তথ্যে জানা গিয়েছে, বর্ধমান শহরে প্রায় সাড়ে সাতশো জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৩ জনের। পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানান, মেমারিতে ২৭৩ জন করোনা আক্রান্ত হলেও মৃত্যু হয়েছে মাত্র একজনের। গলসিতে ২৩৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের। সেখানে বর্ধমান শহরে ৭৩০ জন আক্রান্তের মধ্যে ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যু এত বেশি কেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এর পাশাপাশি শহরের কোন কোন এলাকায় আক্রান্তের হার সবচেয়ে বেশি তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সেইসঙ্গে বাসিন্দাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে সচেতন করা হচ্ছে।

Published by: Simli Raha
First published: October 6, 2020, 8:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर