Home /News /south-bengal /
Crime: ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ড, শিশুকন্যা ধর্ষককে সাজা দিল কাটোয়া আদালত

Crime: ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ড, শিশুকন্যা ধর্ষককে সাজা দিল কাটোয়া আদালত

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

Crime: ২০১৮ সালের ১৫ মে কাটোয়ার পকসো আদালতে চার্জশিট জমা করে কেতুগ্রাম পুলিশ। চার্জশিটে ধর্ষণ করে খুন করা অভিযোগে মামলার শুনানি শুরু হয়।

  • Share this:

    #কাটোয়া: পাঁচ বছরের শিশু কন্যাকে ধর্ষণ করে খুন করার দায়ে যুবককে মৃত্যুদণ্ড দিলেন বিচারক। সাজা প্রাপ্ত জাহাঙ্গির চৌধুরীর বাবা সিরাজ চৌধুরী তাঁর ছেলের মৃত্যুদণ্ডের সাজা মেনে নিতে পারছেন না। কাটোয়া আদালতের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা বিচারকের দেওয়া রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে উচ্চ আদালতে আবেদন করবেন। সিরাজ চৌধুরী আরও বলেন, আমার ছেলে নির্দোষ, জোর করে তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে।

    আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা নাগাদ খাসপুরের পূর্ব পাড়ার রেবিনা বিবির পাঁচ বছরের শিশু কন্যাকে চানাচুর খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে পেশায় পরিযায়ী শ্রমিক জাহাঙ্গির চৌধুরী সঙ্গে করে নিয়ে যায়। দীর্ঘক্ষণ মেয়ে ফিরছে না দেখে খুঁজতে শুরু করলে জাহাঙ্গির রেবিনা বিবিকে জানায় সে বাড়ি ফিরে গিয়েছে। কিন্তু পরদিন ১৫ ফেব্রুয়ারি বেলার দিকে বাড়ির অনতিদূরের একটি ডোবা থেকে মৃত শিশুকে উদ্ধার করে পুলিশ। কেতুগ্রাম থানা অভিযুক্ত জাহাঙ্গির চৌধুরীকে তার বাড়ির কাছ থেকে ওইদিন গ্রেফতার করে পুলিশ। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে শিশুটির যৌনাঙ্গ-সহ দেহে একাধিক আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। পুলিশ তদন্ত শুরু করে জাহাঙ্গির চৌধুরীর বাড়ি থেকে শিশুর গলার পুঁথির মালা উদ্ধার করে।

    আরও পড়ুন - ট্রেনে গেটে দাঁড়ালে কী হয়, তার জলজ্যান্ত উদাহরণ এই ঘটনা! দেখুন হাড়হিম ভিডিও

    ২০১৮ সালের ১৫ মে কাটোয়ার পকসো আদালতে চার্জশিট জমা করে কেতুগ্রাম পুলিশ। চার্জশিটে ধর্ষণ করে খুন করা অভিযোগে মামলার শুনানি শুরু হয়। এই মামলায় মোট ১৬ জন সাক্ষী ছিলেন। বৃহস্পতিবার ২৩ জুন জাহাঙ্গির চৌধুরীকে পকসো আদালতের বিচারক সুকুমার সুত্রধর দোষী সাব্যস্ত করেন। আজ বিকালে বিচারক সুকুমার সুত্রধর রায় দিতে গিয়ে বলেন, এটা বিরলতম ঘটনা, সে কারণেই মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল। জাহাঙ্গির চৌধুরীর মৃত্যুদণ্ডের রায় শোনার পর পরিবারের সদস্যরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

    আরও পড়ুন - ট্রেনে গেটে দাঁড়ালে কী হয়, তার জলজ্যান্ত উদাহরণ এই ঘটনা! দেখুন হাড়হিম ভিডিও

    এক আত্মীয় জ্ঞান হারালেও জাহাঙ্গিরের বাবা সিরাজ চৌধুরী বলেন, আমার নির্দোষ ছেলেকে ফাঁসিয়ে শাস্তি দেওয়া হল। আমি এই রায় মানি না, আমার ছেলের জন্য রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাব। কাটোয়ার পকসো আদালতের এই প্রথম মৃত্যুদণ্ডের রায়ে আইনজীবীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। কাটোয়া বার অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক সোমেন সরকার বলেন, কাটোয়া আদালতে এই প্রথম মৃত্যুদণ্ডের সাজা ঘোষণা করলেন বিচারক। এই ধরনের চরম শাস্তিতে কিছুটা হলেও অপরাধ কমবে। Crime: আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা নাগাদ খাসপুরের পূর্ব পাড়ার রেবিনা বিবির পাঁচ বছরের শিশু কন্যাকে চানাচুর খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে পেশায় পরিযায়ী শ্রমিক জাহাঙ্গির চৌধুরী সঙ্গে করে নিয়ে যায়।

    Ranadeb Mukherjee

    Published by:Uddalak B
    First published:

    Tags: Crime

    পরবর্তী খবর