কংগ্রেসকে সরিয়ে একক দেওয়াল লিখন সিপিআইএমের, প্রশ্নের মুখে বাম-কংগ্রেস জোট! বিতর্ক

কংগ্রেসকে সরিয়ে একক দেওয়াল লিখন সিপিআইএমের, প্রশ্নের মুখে বাম-কংগ্রেস জোট! বিতর্ক
বর্ধমানে কংগ্রেসকে সরিয়ে একক দেওয়াল লিখন সিপিআইএমের।

দেওয়াল লিখনকে কেন্দ্র করে পূর্ব বর্ধমান জেলায় বাম কংগ্রেস জোট ভবিষ্যৎ এখন প্রশ্নের মুখে।

  • Share this:

#বর্ধমান: দেওয়াল লিখনকে কেন্দ্র করে পূর্ব বর্ধমান জেলায় বাম কংগ্রেস জোট ভবিষ্যৎ এখন প্রশ্নের মুখে। আগামী বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজ্য পর্যায়ে সিপিএম এবং কংগ্রেসের মধ্যে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে লড়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলেও পূর্ব বর্ধমান জেলার তার প্রভাব দেখা যাচ্ছে না। বিশেষত কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনা না করেই সিপিএম নিজের মতো করে এককভাবে বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে দেওয়াল লিখন শুরু করে দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠছে। বর্ধমান শহরের অনেক জায়গায় প্রার্থীর নামটুকু ছাড়া সিপিএমের দেওয়াল লিখন সম্পূর্ণ। সেখানে কোথাও কংগ্রেসের নাম উল্লেখ নেই।

এর ফলে বাসিন্দাদের কাছে জোট সম্পর্কে বিভ্রান্তি তৈরি হবে, ভুল বার্তা যাবে বলে মনে করছে কংগ্রেস নেতৃত্ব। অন্যদিকে, সিপিএমের বক্তব্য, সিপিএম এবং কংগ্রেস কখনও যৌথভাবে আবার কখনও এককভাবে নিজেদের কথা মানুষের কাছে তুলে ধরছে। প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত হলে তখন সেভাবে দেওয়াল লিখন হবে।

একসময় লাল দুর্গ হিসেবে পরিচিত ছিল বর্ধমান। তিন দশকেরও বেশি সময় লাল ঝান্ডায় মোড়া থেকেছে বর্ধমান দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্র। শহরের রাজপথে আওয়াজ উঠেছে লাল ঝান্ডা করে পুকার, ইনক্লাব জিন্দাবাদ। সময়ের ব্যবধানে সেই লাল ফিকে হয়েছে অনেকটাই। জনসমর্থন কমেছে কংগ্রেসেরও। ভোটের লড়াইয়ে শক্তি বাড়াতে একে অপরের হাত ধরেছে সিপিএম কংগ্রেস। রাজ্যজুড়ে কে কোন আসনে প্রার্থী দেবে তার তালিকা চূড়ান্ত হচ্ছে। ঠিক সেই পরিস্থিতিতে সিপিএমের এককভাবে দেওয়াল লিখন জোটের পক্ষে স্বাস্থ্যকর নয় বলেই মনে করছে কংগ্রেস নেতৃত্ব।


বর্ধমানে কংগ্রেসকে সরিয়ে একক দেওয়াল লিখন সিপিআইএমের। বর্ধমানে কংগ্রেসকে সরিয়ে একক দেওয়াল লিখন সিপিআইএমের।

কংগ্রেস নেতাগৌরব সমাদ্দার বলেন, চলতি মাসের শেষে কলকাতায় বড় আকারের যৌথসভার প্রস্তুতি চলছে। কে কোন আসনে প্রার্থী দেবে তা নিয়ে বৈঠক চলছে। সেই পরিস্থিতিতে সিপিএমের এককভাবে দেওয়াল লিখন মানুষের কাছে ভুল বার্তা নিয়ে যাবে। তাই আমাদের আবেদন বিধানসভা নির্বাচন ভালো ফল করতে হলে দুপক্ষের আলাপ-আলোচনা ও সহমতের ভিত্তিতে কর্মসূচি চূড়ান্ত হওয়া উচিত।

অন্যদিকে সিপিএম জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় বলেন, গত তিন মাস ধরে বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে মানুষের কাছে আমাদের কথা তুলে ধরছি। আবার কংগ্রেসের সঙ্গে যৌথ কর্মসূচিও পালন করা হচ্ছে। কখনও যৌথ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আবার কখনও এককভাবে মানুষের কাছে আমাদের বক্তব্য তুলে ধরা হবে। এককভাবে দেওয়াল লিখন হলেও অনেক জায়গাতে বাম গণতান্ত্রিক ধর্মনিরপেক্ষ জোটের বিকল্প সরকারের কথা লেখা হচ্ছে। তার মধ্যে দিয়েই জোটের কথা বলা হচ্ছে। তবে এখন একেবারেই প্রাথমিক স্তরে দেওয়াল লিখন শুরু হয়েছে। জোট প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত হলে সেই সময়ের মতো করেই দেওয়াল লিখন হবে।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published: