'অনেক পদে থাকায় ব্যক্তিগত আক্রমণ', ইস্তফা দিয়ে পাল্টা চ্যালেঞ্জ শুভেন্দুর

পদত্যাগ করেই জবাব শুভেন্দুর৷ Photo-File

অধিকারী পরিবারের অনেকেই নানা পদে রয়েছেন৷ শুভেন্দুর বাবা শিশির অধিকারী এবং ভাই দিব্যেন্দু অধিকারী যথাক্রমে কাঁথি এবং তমলুকের সাংসদ৷

  • Share this:

    #কাঁথি: সরকারি একাধিক পদে থেকে কেন অরাজনৈতিক সভা করছেন? কেনই বা পরোক্ষে সমালোচনা করে দলকে অস্বস্তিতে ফেলছেন শুভেন্দু অধিকারী? গত কয়েকদিনে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো কেউ কেউ শুভেন্দু অধিকারীর বিভিন্ন পদে থাকা নিয়ে বার বার প্রশ্ন তুলেছেন৷ এই ধরনের ব্যক্তিগত আক্রমণের জবাব দিতেই মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দিয়ে শুভেন্দু জবাব দিলেন বলে তাঁর পারিবারিক সূত্রে খবর৷ এ দিন হলদিয়া ডেভেলপমেন্ট অথোরিটির চেয়ারম্যান পদেও ইস্তফা দিয়েছেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক৷ বৃহস্পতিবারই এইচআরবিসি-র চেয়ারম্যান পদ ছেড়েছেন তিনি৷ ছেড়ে দিয়েছেন সরকারি নিরাপত্তাও৷

    একা শুভেন্দু নন, অধিকারী পরিবারের অনেকেই নানা পদে রয়েছেন৷ শুভেন্দুর বাবা শিশির অধিকারী এবং ভাই দিব্যেন্দু অধিকারী যথাক্রমে কাঁথি এবং তমলুকের সাংসদ৷ আর এক ভাই সৌম্যেন্দুও রকাঁথি পুরসভার চেয়ারম্যান (বর্তমানে প্রশাসক) পদে রয়েছেন৷ পাশাপাশি দিঘা- শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন শুভেন্দু৷

    প্রকাশ্যে এবং তৃণমূলের অন্দরেও অনেকে অভিযোগ তুলছিলেন, একা শুভেন্দু নন, দলের থেকে গোটা অধিকারী পরিবার অনেক কিছু পেয়েছেন৷ তার পরেও কোন মুখে শুভেন্দু বঞ্চনার অভিযোগ তুলছেন, বা এতগুলি সরকারি পদে থেকে অরাজনৈতিক সভা করে দলকে অস্বস্তিতে ফেলছেন, সেই প্রশ্ন তুলেই শুভেন্দুকে পাল্টা চাপে ফেলার চেষ্টা চলছিল৷

    সূত্রের খবর, ঘনিষ্ঠ মহলে শুভেন্দু বলেছেন, 'অনেকগুলি পদে রয়েছি বলে ব্যক্তিগত আক্রমণ হচ্ছে৷' তাঁর যে পদের প্রতি মোহ নেই, তা বুঝিয়ে দিতেই একের পর এক পদ ছেড়ে দিলেন শুভেন্দু৷ এবং পদহীন হয়ে গেলেও তাঁর রাজনৈতিক গুরুত্ব কমবে না, সেটাও তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বকে বুঝিয়ে দিতে চান শুভেন্দু অধিকারী৷ ফলে আপাতত শুধুমাত্র বিধায়ক থেকেই দলের সঙ্গে শুভেন্দুর দর কষাকষি চলতে পারে, সেই সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহল৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: