• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • রাতভর নিখোঁজ থাকার পর বাড়ি থেকে দেড় কিমি দূরের পুকুর থেকে উদ্ধার দশম শ্রেণীর ছাত্রীর দেহ

রাতভর নিখোঁজ থাকার পর বাড়ি থেকে দেড় কিমি দূরের পুকুর থেকে উদ্ধার দশম শ্রেণীর ছাত্রীর দেহ

প্রতীকী চিত্র ।

প্রতীকী চিত্র ।

প্রিয়শ্রী ভাল সাঁতার জানত। নিজে থেকে পড়ে গেলে উঠে আসার ক্ষমতা তার ছিল। ঘটনাটি খুন নাকি আত্মহত্যা, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

  • Share this:

Debasish Chakraborty

#সাঁতরাগাছি: সারা রাত নিখোঁজ থাকার পর বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ির কাছের পুকুর থেকে উদ্ধার দশম শ্রেণীর ছাত্রীর দেহ |  দক্ষিণ বাকসাড়ার কনক কানন মাঠের কাছে একটি জলাশয় থেকে দশম শ্রেণীর ছাত্রীর দেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায়। পুলিশ জানিয়েছে, মৃত ওই ছাত্রীর নাম প্রিয়শ্রী ঘোষ (১৫)। স্থানীয় একটি স্কুলে পড়ত সে। এ বার মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল।

এ দিন সকালে জলাশয়ে দেহটি ভাসতে দেখেন স্থানীয় লোকজন । তাঁরাই পুলিশে খবর দেন। মেয়েটির বাড়ি সাঁতরাগাছি থানা এলাকায় হলেও বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরের জলাশয় কী করে তার দেহ পাওয়া গেল তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ | ছাত্রীর মা-বাবা সহ আত্মীয় পরিজনদের অভিযোগ প্রিয়াসীর বন্ধুর ফোন পেয়ে সে রাত এগারোটার পরে বেরিয়ে যায় । এরপর মেয়েটির বাবা গোটা এলাকা খোঁজখুঁজি করলেও তার কোনও হদিশ পাওয়া যায়নি এবং সকাল হতেই তার দেহ উদ্ধার হয় | বুধবার রাতে ফোন করে ডেকে নিয়ে গিয়ে তারপর মেরে জলে ফেলে দেওয়া হয়েছে প্রিয়শ্রীকে, অভিযোগ তার বাবা মায়ের | তাঁরা অভিযোগের আঙুল তুলেছেন ওই ছাত্রীরই কয়েকজন বন্ধুবান্ধবের দিকে। নিখোঁজ থাকার পর বুধবার রাত থেকেই ওই ছাত্রীর ফোন বন্ধ রয়েছে। ফোনটির খোঁজ পেলে এই মৃত্যু রহস্যের অনেকটা সামনে আসবে বলে দাবি তদন্তকারীদের |

ফোনটি না পাওয়া গেলেও মেয়েটির কল লিস্ট খতিয়ে দেখা হচ্ছে | ছাত্রীর মা-বাবা জানান, বুধবার রাতে নাগাদ খাওয়াদাওয়ার পর তাঁরা সবাই শুয়ে পড়েছিলেন। মা-বাবা নীচের ঘরে ঘুমোন। মেয়ে ঘুমাত উপরের ঘরে। ঘরের সদর দরজা লাগানো ছিল। রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ ওই ছাত্রীর বাবা অশোক ঘোষ বাথরুমে যাওয়ার জন্য ওঠেন। তখন খেয়াল করেন পিছনের দরজা খোলা এবং মেয়ের জুতোও নেই। বিছানাতেও তাকে না দেখে খোঁজখুঁজি শুরু করেন। কিন্তু সারা রাত মেয়ের খোঁজ পাননি। মৃত ছাত্রীর মা, বাবা দু’জনেই এক বান্ধবী এবং এক বন্ধুর নাম করে বলেন, ওদের সঙ্গেই বেশি মেলামেশা করত মেয়ে | মাঝে মাঝে  ঝগড়াঝাঁটিও হত ওদের সঙ্গে।

এক আত্মীয় বলেন, প্রিয়শ্রী ভাল সাঁতার জানত। নিজে থেকে পড়ে গেলে উঠে আসার ক্ষমতা তার ছিল। ইতিমধ্যে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানান ওই আত্মীয়। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনাটি খুন নাকি আত্মহত্যা, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। যাদের নাম উঠে আসছে, প্রয়োজনে তাদের জিজ্ঞাসাবাদও করা হবে বলে জানান তদন্তকারী অফিসাররা |

Published by:Simli Raha
First published: