corona virus btn
corona virus btn
Loading

স্যানিটাইজার স্প্রে করে শহরকে জীবাণুমুক্ত করার কাজ চলছে!

স্যানিটাইজার স্প্রে করে শহরকে জীবাণুমুক্ত করার কাজ চলছে!

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে লক ডাউনের মধ্যেই এই বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

  • Share this:

#বর্ধমান:মেমারি শহরকে জীবাণুমুক্ত করার কাজ শুরু করল  দমকল। স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করা হচ্ছে বিভিন্ন এলাকা। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে লক ডাউনের মধ্যেই এই বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এদিন সকাল থেকেই স্যানিটাইজ করা শুরু করে দেন দমকল কর্মীরা। মেমারি পৌরসভা ভবনে স্যানিটাইজার স্প্রে করা হয়। বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে জীবাণুমুক্ত করার কাজ চলে। রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা অ্যাম্বুলান্সগুলিকেও স্যানিটাইজ করা হয়।এছাড়াও ব্যাঙ্ক,রেশনের দোকান সহ শহরের রাস্তাগুলোতেও   জীবাণু মুক্ত করা হবে বলে দমকল সূত্রে জানা গিয়েছে। আপাতত ধারাবাহিক ভাবে এই কাজ চলবে।

গতকালই জীবাণুমুক্ত করা হয়েছিল বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। এই হাসপাতালের সুপার স্পেশালিটি উইং অনাময় হাসপাতালেও স্যানিটাইজার স্প্রে করা হয়। বৃহস্পতিবার দমকল কর্মীরা কালনা মহকুমা হাসপাতালে সেই কাজ চালান। হাসপাতালের সুপার অফিস, আউটডোর সহ রোগী নেই এমন সব ওয়ার্ডেই জীবানু নাশক ছড়ানো হয়।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, হাসপাতালগুলিকে নিয়মিত  জীবাণুমুক্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেখানের রোগী ও তাদের আত্মীয়দের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। থানা বিডিও অফিস সহ সব জায়গাতেই বাসিন্দারা যে কোনও প্রয়োজনে গেলে প্রথমেই তাদের স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করে নিতে বলা হচ্ছে।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলায় হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ঘাটতি অনেকটাই মিটেছে। কয়েকটি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা দ্রুততার সাথে রাত দিন এক করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করেছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের কাঁচা মাল সরবরাহ করা হয়েছিল। উৎপাদিত হ্যান্ড স্যানিটাইজারের বেশির ভাগই জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দফতর কিনে নিয়েছে। থানা, বিডিও অফিস, পঞ্চায়েত, হাসপাতাল সব জায়গাতেই এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

বাসিন্দারা বলছেন, বাজারে এখনও অমিল হ্যান্ড স্যানিটাইজার। এন নাইটি ফাইভ মাস্কেরও যোগান নেই। ইদানিং আবার অনেকেই করোনা রুখতে হাতে রবারের গ্লাভস পড়ছেন। সেই গ্লাভসেরও কালোবাজারি চলছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Elina Datta
First published: April 3, 2020, 12:53 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर