• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • CHANDANA BAURI THE BJP MLA FROM BANKURA SALTORA FIRST TIME IN ASSEMBLY TALKS HER MIND SANJ

Chandana Bauri : মনের মধ্যে 'বাবু', যাতায়াতে মেজ'দার গাড়ি, MLA হস্টেলে অন্য জীবন শালতোড়ার চন্দনার!

বিধানসভার পাঠ চলছে চন্দনার

বাঁকুড়ার শালতোড়া (Saltora, Bankura) থেকে প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। আর বিধানসভায় এসে কিছুটা প্রথম দিকে ঘাবড়ে গেলেও ধীরে ধীরে মানিয়ে নিচ্ছেন চন্দনা বাউড়ি (Chandana Bauri)।

  • Share this:

#কলকাতা : "বাবুটার শরীর খারাপ। ৫ দিন হল দেখিনি ওকে।  সভা শেষ হলেই তাড়াতাড়ি বাড়ি যেতে হবে তাই।" বিধানসভার অলিন্দে দাঁড়িয়ে এক নিঃশ্বাসে কথাগুলো বলে যাচ্ছিলেন চন্দনা বাউড়ি (Chandana Bauri)। প্রথমবার ভোটে জিতেছেন (BJP MLA)। বাঁকুড়ার শালতোড়া (Saltora, Bankura) থেকে প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। আর বিধানসভায় এসে কিছুটা প্রথম দিকে ঘাবড়ে গেলেও ধীরে ধীরে মানিয়ে নিচ্ছেন তিনি। একদিকে এলাকার উন্নয়ন, নিয়ম মেনে বিধানসভায় সকলের কথা মন দিয়ে শোনা আর অন্যদিকে নিজের সন্তানের খোঁজ। এটাই এখন রুটিন হয়ে গিয়েছে চন্দনা বাউড়ির।

কেমন লাগছে বিধানসভায়? "ভালোই লাগছে শুভেন্দু দা, শ্রীরুপা দিদি আমাকে অনেক কিছু বুঝিয়ে দিয়েছেন। আমি আস্তে আস্তে সব শিখে নিচ্ছি।" বিধানসভায় করতেই হবে।  কিন্তু যাতায়াতের জন্য গাড়ির জোগাড় কোথায়? তাই শেষ মেশ দাদার গাড়ি ভাড়া করে সুদূর বাঁকুড়ার শালতোড়া  থেকে 'কলকাতা' শহরে এসে রয়েছেন বিজেপির নবনির্বাচিত বিধায়ক চন্দনা বাউড়ি।

বিজেপির 'দরিদ্রতম' প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের প্রার্থী তালিকার পর থেকেই বার বার শিরোনামে উঠে আসে চন্দনার নাম। এমনকি প্রচারের গোড়ার দিক থেকেই সকলের নজর করেছিলেন ছোটোখাটো চেহারার মেয়েটি। কারণ এক দিন-মজুরের স্ত্রী, দুই সন্তানের মা চন্দনার দিনলিপি প্রথম থেকেই আর পাঁচজন প্রার্থীর তুলনায় ছিল অন্যরকম। পান্তা খেয়ে দিন-রাত পাড়ায় পাড়ায় প্রচার চালানো চন্দনাকে তাই ভোট দিয়ে জিতিয়েছেন শালতোড়ার মানুষ।

বিধানসভায় দাঁড়িয়ে আরও একবার কৃতজ্ঞতায় গলা বুজে আসে চন্দনার। বলেন, "আমার মতো একজন গরিব মানুষকে টিকিট দিয়েছে বিজেপি, এটাই অনেক।" চকচকে হলুদ-লাল মাস্কের আড়ালেও আলো ফুটে ওঠে চন্দনার চোখে-মুখে। বলেন, "একবার কলকাতায় আসতে অনেক খরচ। আমি তাও আসব। জনগণ আমায় জিতিয়ে এনেছে তাই আসতেই হবে।"

শালতোড়ার রাস্তা-ঘাট তৈরির কাজেই প্রথম মন দিতে চান চন্দনা। ইতিমধ্যেই কাজের পরিকল্পনা নিয়ে হোম ওয়ার্ক করা বিজেপি বিধায়কের পরিকল্পনায় রয়েছে এলাকার মানুষের জন্যে যত দ্রুত সম্ভব জলের সু-বন্দোবস্ত করার পরিকল্পনাও। বিধানসভায় সব বিধায়কের সঙ্গে চন্দনা বাউড়ি (Chanda Bauri) সোচ্চার হতে চান। আগামী পাঁচ বছর এলাকার মানুষের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতিতে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছেন বিজেপির দরিদ্রতম বিধায়ক (BJP MLA Chandana Bauri)। এলাকার আরও অনেক চন্দনার স্বপ্নপূরণের দায়িত্ব যে আজ তাঁরই হাতে। তবে চন্দনা  খুশি এম এল এ হস্টেলে থাকার ঘর পেয়েছেন। আর বাঁকুড়া থেকে যাতায়াতের জন্যে 'মেজ'দার' গাড়ি তো আছে!

Published by:Sanjukta Sarkar
First published: