দেউচা পাঁচামীতে কয়লা খনি এলাকায় কাজ শুরুর ছাড়পত্র কেন্দ্রের

দেউচা পাঁচামীতে কয়লা খনি এলাকায় কাজ শুরুর ছাড়পত্র কেন্দ্রের
Representational Image

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম কয়লা হাব এখানেই গড়ে উঠবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এই প্রকল্পে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা লগ্নি হবে বলে মনে করছে রাজ্য।

  • Share this:

ABIR GHOSHAL

#বীরভূম: দেউচা পাঁচামী কয়লা খনি এলাকায় কাজ শুরু করার ব্যপারে ছাড়পত্র দিল কেন্দ্রীয় কয়লা মন্ত্রক। বুধবারেই রাজ্য সরকারের কাছে কাজ শুরুর ব্যপারে অনুমতি দিয়েছে কেন্দ্রীয় কয়লা মন্ত্রক। গতকাল রাতে ছাড়পত্র পাওয়ার পরেই দ্রুত কাজ শুরু করতে চায় রাজ্য সরকার। নবান্ন সূত্রের খবর দেওয়ানগনজ ও হরিণসিংঘা গ্রামে প্রাথমিক ভাবে কাজ শুরু করবে রাজ্য সরকার। কিভাবে কাজ শুরু হবে তা খতিয়ে দেখতে আগামী দু-এক দিনের মধ্যে এলাকা পরিদর্শন করতে যাচ্ছেন মুখ্যসচিব। জেলা প্রশাসনের সাথে একটি বৈঠক করবেন তিনি।

২০১৫ সালে মোট ১৭টি কয়লা ব্লককে কেন্দ্রীয় কয়লা মন্ত্রক বন্টন করে। যার মধ্যে এশিয়ার বৃহত্তম এই কয়লাখনি দেউচা পাচামি রয়েছে। এই এলাকায় ২১০২ মিলিয়ন টন কয়লা মজুত আছে । বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম কয়লা হাব এখানেই গড়ে উঠবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এই প্রকল্পে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা লগ্নি হবে বলে মনে করছে রাজ্য।

প্রায় ১২ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুডে অবস্থিত এই দেউচা পাচামি কোল ব্লক। এই এলাকায় প্রায় ৪০০ পরিবার বসবাস করে। আদিবাসী এই পরিবারগুলিকে যথাযথ পুর্নবাসন দেওয়া হবে বলে ইতিমধ্যেই জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। তবে এই অংশের দেওয়ানগনজ ও হরিণসিংঘাতে প্রথমে কাজ শুরু করবে রাজ্য। কারণ এই এলাকায় মাটির ২০০ থেকে ৩০০ মিটার নীচে রয়েছে কয়লা। স্বাভাবিক নিয়মে এই জায়গা থেকে কয়লা তুলতে কোনও সমস্যা হবে না বলেই মনে করছে রাজ্য। নবান্ন সূত্রের খবর এই এলাকায় প্রায় ৪০ লাখ মেট্রিক টন কয়লা পাওয়া যাবে। সাত দিনের মধ্যে এই জায়গায় মাইনিং প্রকল্পের জন্য প্রয়োজনীয় কাজ শুরু করে দিতে চায় রাজ্য সরকার। যেহেতু এই এলাকায় পাথরের কোনও বাধা নেই তাই কাজ করতে কোনও অসুবিধা হবে না বলেই মত নবান্নের। তবে পরিবেশ ও বন দফতরের সম্পূর্ণ ছাড়পত্র নিয়েই এখানে পুরোপুরি কাজ শুরু করে দিতে পারা যাবে। রাজ্য সরকার চাইছে আগামী ২৪ মাসের মধ্যে এই কোল ব্লক পুরোপুরি অপারেশনাল করে তুলতে। তবে চলতি মাসে কাজ শুরু হলে রাজ্য আশাবাদী ১৮-১৯ মাসে কাজ শেষ করা সম্ভব হবে।

ইতিমধ্যেই এই এলাকায় কয়লা কিভাবে উত্তোলন করা যাবে তা নিয়ে কলকাতায় পোল্যান্ডের সাইলেশিয়ার এক নয়-সদস্যের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিদ্যুৎ মন্ত্রী শোভনদেব চট্টাপাধ্যায়। এই রকম গভীর জায়গা থেকে কয়লা উত্তোলনের প্রযুক্তি ও দক্ষতা সব দেশের নেই। চিন, অস্ট্রেলিয়া, পোল্যান্ডের মতো হাতেগোনা কয়েকটি দেশের দক্ষ সংস্থার কাছে এই ধরনের প্রযুক্তি রয়েছে। তবে কারা আসল কাজ করবে তার জন্য গ্লোবাল টেন্ডার ডাকতে চলেছে রাজ্য সরকার।

বৃহস্পতিবার দীঘায় শিল্প সন্মেলনের আসর থেকে দেউচা পাচামী নিয়ে আশা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, দেউচা পাঁচামীর যে অংশ রাজ্য সরকারের হাতে আছে সেখানে ২৪ মাসে কাজ হলে বিদ্যুৎ সমস্যা মিটে যাবে আগামী ১০০ বছরের জন্যে। সেই কারণেই এই অংশে দ্রুত কাজ শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। শিল্প মহলের আশা এই কাজ শুরু হয়ে গেলে রাজ্য আর্থিক ভাবেও শক্তিশালী হবে।

First published: 11:44:35 PM Dec 12, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर