corona virus btn
corona virus btn
Loading

আমফানের ঠেলায় নারকেল গাছের মাথায় উঠল বিড়াল! তারপর যা হল...পড়ুন--

আমফানের ঠেলায় নারকেল গাছের মাথায় উঠল বিড়াল! তারপর যা হল...পড়ুন--

আমফানের ভয়ে নারকেল গাছে উঠল বিড়াল

  • Share this:

#বর্ধমান: ঠেলায় পড়লে বিড়াল গাছে ওঠে। সেই ঠেলার নাম যদি আমফান হয়, তবে বিড়ালও যে নারকেল গাছে উঠতে পারে, তা-ই দেখলেন বর্ধমানের বাসিন্দারা। আমফানের ঠেলায় গত বুধবার বর্ধমান শহরের মালঞ্চ পল্লী এলাকার একটি নারকেল গাছে উঠে পড়ে এক বিড়াল। ভেবেচিন্তে ওঠেনি বেচারা, ঝড়ের কবল থেকে নিজেকে বাঁচাতে উঁচু জায়গায় ঘাঁটি গেড়েছিল। গাছ বেয়ে উঠে তো পড়া গেল, কিন্তু নামবে কি করে? তা ভেবেই বেড়াল বাবাজির দুর্ভোগের একশেষ।  নিজে নামতে না পেরে অন্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে শুরু হল একটানা 'ম্যাও ম্যাও' ডাক!  শেষমেশ কাজ হল বেড়ালের ডাকে সাড়া দিয়ে স্থানীয় এক ব্যাক্তি নারকেল গাছে উঠে রীতিমতো ঘাড় ধরে নামাল বেড়ালকে!

মালঞ্চপল্লীর দম্পতি লক্ষ্মীনারায়ণ গুপ্ত ও সমাপ্তি গুপ্তর বাড়িতে এই বিড়ালের অবাধ যাতায়াত। বৃহস্পতিবার তাঁরা বিড়ালের কান্না শুনে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। বিস্তর খোঁজাখুঁজির পর অবশেষে বাঘের মাসির সন্ধান মেলে নারকেল গাছের মাথায়। তা দেখেই তাজ্জব এলাকাবাসী। তবে কি বিড়ালটি আমফান থেকে রেহাই পেতে গাছ বেয়ে টঙে উঠেছিল? এমনটা মানতে নারাজ অনেকেই। তাঁদের ধারনা, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া দেখে বিড়ালটি মনমরা হয়ে শুয়েছিল ছাদের কার্নিশে। হয়তো ঘুমও এসেছিল। আমফানের দমকায় সম্বিত ফেরার আগেই সে লাফ মারে নারকেল গাছে। সারারাত ঝড়ের দাপটে নারকেল গাছ দুলেছে। গাছটিকে আঁকড়ে কোনওরকমে জীবন বাঁচিয়েছে। পরদিন সব থামতে নামার জন্য জুড়ে বসে কান্না!

গুপ্ত দম্পতি বিড়ালটিকে গাছ থেকে নামাতে অনেক চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। । লাঠি বাড়িয়ে বিস্কুট দিয়ে তার ক্ষিধে মেটানোর ব্যবস্থা করেন। এরপর তাঁরা পশুপ্রেমী সংগঠন 'ভয়েস ফর দ্য ভয়েসলেস'-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। সংস্থার সভাপতি অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় জানান, 'খবর পেয়েই আমাদের সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। অনেক চেষ্টার পরও বিড়ালটিকে গাছ থেকে নামাতে না পেরে শুভেন্দু দে নামে আমাদের এক সদস্য কোনওক্রমে নারকেল গাছের মাথায় ওঠেন। তখনও বিড়ালটি ম্যাও ম্যাও করে কেঁদে চলেছে। নীচে  উৎকণ্ঠায় ওই দম্পতি। অনেক চেষ্টার পর শুভেন্দু কোনও রকমে বিড়ালটির  ঘাড় ধরেন। কিন্তু নামাবেন কি করে?একজনের পরামর্শে বিড়ালটিকে নারকেল গাছের পাশের ছাদে ছুঁড়ে দেন।'

গা ছাড়া দিয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে বিড়াল, এরপরই মুচকি হাসি দিয়ে চম্পট! হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন সকলে।

Saradindu Ghosh

Published by: Rukmini Mazumder
First published: May 25, 2020, 9:58 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर