corona virus btn
corona virus btn
Loading

জাতীয় সড়কের ফ্লাইওভার টপকে সার্ভিস রোডে আছড়ে পড়ল তেল ট্যাঙ্কার!

জাতীয় সড়কের ফ্লাইওভার টপকে সার্ভিস রোডে আছড়ে পড়ল তেল ট্যাঙ্কার!

নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে জাতীয় সড়কের ফ্লাইওভার থেকে পনের ফুট নীচে সার্ভিস রোডে আছড়ে পড়ল তেলের ট্যাঙ্কার। বিকট শব্দে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন বাসিন্দারা।

  • Share this:

#বর্ধমান: নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে জাতীয় সড়কের  ফ্লাইওভার থেকে পনের ফুট  নীচে সার্ভিস রোডে আছড়ে পড়ল তেলের ট্যাঙ্কার। বিকট শব্দে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন বাসিন্দারা।  ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন ট্যাঙ্কারের চালক। পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে শনিবার রাতে এই ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার রাত নটা নাগাদ এই দুর্ঘটনা ঘটে। হঠাৎই জাতীয় সড়ক থেকে ছিটকে রেলিং টপকে ট্যাঙ্কারটি নিচে পড়ে যায়। ট্যাঙ্কারটি বর্ধমানের দিক থেকে দুর্গাপুরের দিকে যাচ্ছিল। গলসি বাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। প্রাথমিক আতংক কাটিয়ে ছুটে আসেন স্থানীয় বাসিন্দারা। কাজেই গলসি থানা। স্থানিয় বাসিন্দাদের সঙ্গে উদ্ধার কাজে হাত লাগান পুলিশ কর্মীরা। চালককে বের করে চিকিৎসার জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ক্রেন এনে সার্ভিস রোড থেকে সরানো হয় দুর্ঘটনাগ্রস্ত তেল ট্যাঙ্কারটিকে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হঠাৎই বিকট শব্দ হয়। কি হল প্রথমে বোঝা যায়নি। তারপরই দেখা যায় পনের ফুট নীচে রাস্তায় পরে রয়েছে তেলের ট্যাঙ্কারটি। সেটি তেল শূন্য ছিল। নচেৎ পড়ে গিয়ে বিস্ফোরন ঘটলে ভয়াবহ আকার নিতে পারতো। তেল ট্যাঙ্কারটি বর্ধমানের দিক থেকে দুর্গাপুরের দিকে যাচ্ছিল।

বাসিন্দারা বলছিলেন,  সারাদিনই লোকজন থাকে গলসী বাজার এলাকায়। রাত আটটা সাড়ে আটটা পর্যন্ত গমগম করে এলাকা। শনিবার সরকারি অফিস বন্ধ থাকে, তার ওপর আবহাওয়া খারাপ থাকায় দোকান পাট বন্ধ হয়ে গিয়েছিল বলে রক্ষা। নচেৎ বহু মানুষের প্রাণহানি ঘটতে পারতো। ওই রাস্তা দিয়ে যাত্রীবাহী বাসও চলে। বাসের ওপর পড়লে আর রক্ষা থাকতো না। ট্যাঙ্কারটি একটি সবজি ভ্যানের ওপর পড়ে। ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে গিয়েছে সেটি।

পুলিশ জানিয়েছে, কি কারনে চালক নিয়ন্ত্রণ হারালেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জাতীয় সড়কের যে অংশ থেকে ট্যাঙ্কারটি পড়ে যায় সেই এলাকা খুঁটিয়ে দেখা হচ্ছে। ওভারটেক করতে গিয়ে এমন ঘটনা ঘটলো নাকি মাত্রাতিরিক্ত গতিতে ছোটার কারনে দুর্ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে তাও। ট্যাঙ্কারটিতে কোনও যান্ত্রিক ত্রুটি ছিল কিনা তাও পরীক্ষা করে দেখা হবে।

SARADINDU GHOSH 

First published: February 8, 2020, 11:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर