• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • CALCUTTA HIIGHCOURT CANCELLS THE DECISION TO REMOVE NANDIGRAM BOYAL PANCHAYAT PRADHAN SMJ

হাইকোর্টে অনাস্থা খারিজ, বয়ালের পঞ্চায়েত প্রধানের অপসারণের সিদ্ধান্ত বাতিল 

হাইকোর্টে বিজেপি মামলা জেতায় নন্দীগ্রামে আরও একবার হার হজম করতে হল তৃণমূল কংগ্রেসকে।

হাইকোর্টে বিজেপি মামলা জেতায় নন্দীগ্রামে আরও একবার হার হজম করতে হল তৃণমূল কংগ্রেসকে।

  • Share this:

#নন্দীগ্রাম:

হাইকোর্টে নন্দীগ্রাম মামলায় ধাক্কা তৃণমূলের। নন্দীগ্রাম বিধানসভার অন্তর্গত বয়াল-১ পঞ্চায়েতের প্রধান অপসারণের সিদ্ধান্ত বাতিল করে দিল হাইকোর্ট। নন্দীগ্রাম বিধানসভার নির্বাচনের দিন শিরোনামে উঠে আসে বয়ালের নাম। এলাকার একাধিক বুথ ক্যাপচার--এর অভিযোগ করে তৃণমূল কংগ্রেস। বেলা বাড়তে বয়ালের একটি বুথে ভোট কারচুপির অভিযোগের প্রতিবাদ জানিয়ে বুথের বাইরে প্রায় ঘন্টা খানেক  অবস্থানে বসেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বয়াল নিয়ে দুই রাজনৈতিক দলের অবস্থানই খুব স্পর্শকাতর।

বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের বিচারপতি অরিন্দম মুখোপাধ্যায় রায়ে জানান, ব্লক ডেভেলপমেন্ট অফিসারের অনাস্থা নোটিশ আইন মেনে দেওয়া হয়নি। আদালত অনাস্থা নোটিশ খারিজ করছে। অনাস্থা প্রক্রিয়া চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে মামলা করেন বয়াল প্রধান পবিত্র কর। বিডিওর আনা অনাস্থা নোটিশ খারিজ হওয়ায় বয়াল-১ পঞ্চায়েত প্রধান রয়ে গেলেন বিজেপির পবিত্র কর। পবিত্র করের আইনজীবী বিল্লদ্বল ভট্টাচার্য জানান, নোটিশ খারিজ হওয়ায় পঞ্চায়েত পরিচালনার ক্ষমতা রইল পবিত্র করের হাতেই। পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় বরাবর শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামী পবিত্র কর। শুভেন্দু বিজেপিতে যাওয়ার পর পবিত্র করও তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যান।

বয়াল ১ গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছিলেন পবিত্র কর। ২ মে বিধানসভার ফলাফল বেরোনোর পর ২৮ মে দুই পঞ্চায়েত সদস্যের বর্তমান প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থার আবেদন মেনে বিডিও নোটিশ দের অনাস্থা বৈঠকের।  বিজেপি নেতা আদালতে যুক্তি দেন, আইন অনুযায়ী  এই ধরনের নোটিশ প্রধানের বাড়িতে অথবা অফিসে দিতে হয়। অথচ সেই নিয়ম মানা হয়নি। সেই সঙ্গে করোনা পরিস্থিতিতে রাজ্যের কড়া বিধিনিষেধ নির্দেশিকা ভেঙে মিটিং ডেকেছেন বিডিও। যদিও রাজ্যের যুক্তি ছিল, প্রধানকে তাঁর অফিসে পাওয়া যায়নি, তাই হাতেহাতে নোটিশ দেওয়া সম্ভব হয়নি। সেইসঙ্গে গ্রাম পঞ্চায়েতের দশ সদস্যের মধ্যে ভোটাভুটিতে আটজন প্রধানের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন। হাইকোর্টে বিজেপি মামলা জেতায় নন্দীগ্রামে আরও একবার হার হজম করতে হল তৃণমূল কংগ্রেসকে।

Published by:Suman Majumder
First published: