করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ, তা বলে আনন্দ কেন বাদ, আক্রান্ত বাড়িতে পৌঁছে যাচ্ছে সেলিব্রেশনের কেক!

আপনি বা আপনার বাড়িতে কেউ করোনা আক্রান্ত ? বাড়িতে সন্তানের বা বাবা মায়ের জন্মদিন ? চিন্তার কিছু নেই...

আপনি বা আপনার বাড়িতে কেউ করোনা আক্রান্ত ? বাড়িতে সন্তানের বা বাবা মায়ের জন্মদিন ? চিন্তার কিছু নেই...

  • Share this:

#হাওড়া: করোনা আক্রান্তের বাড়িতে অক্সিজেন থেকে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে বিভিন্ন সংগঠন | কেউ আবার নিজের বাড়িতেই রান্না করে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে করোনা আক্রান্তদের বাড়ি-বাড়ি | করোনা আক্রান্তদের বাড়িতে কারোর সন্তানদের জন্মদিন থাকলে, সেই আনন্দতে যেন কোনও ঘাটতি না থাকে সেই জন্যই সেই বাড়িতে পৌঁছে জন্মদিনের কেক ও মিষ্টি |

 হাওড়ার সালকিয়ার এক প্রসিদ্ধ মিষ্টি ও কেক প্রস্তুতকারি সংস্থা তরফে করোনা আক্রান্তদের মনোবল বাড়তে নেওয়া হলো অভিনব উদ্যোগ | আর এই উপহারের জন্য ব্যয় করতে হবে না কোনও অর্থ | শুধু মাত্রা একটা ফোন কল করে জানিয়ে দিতে হবে বাড়ির ঠিকানা বা যার জন্মদিন তার নাম | দরকারের কেকের স্বাদ কি হবে সেটাও জানিয়ে দিতে পারেন | ফোনকল আসার পর বানিয়ে রাখা কেক নয়, একেবারে আবদার মতো ফ্লেভারে সঙ্গে সঙ্গে বানিয়ে দেওয়া হবে কেক এবং সংস্থার তরফে পৌঁছে দেওয়া হবে আপনার বাড়িতে |

সালকিয়ার প্রসিদ্ধ মিষ্টান্ন ভান্ডার " ব্রজনাথ গ্র্যান্ড সন্স"  এর কর্ণধার অভিজিত দাস এর দাবি , হাওড়া শহরে গতবছর সব থেকে বেশি ও শহরের প্রথম করোনা রোগীর খোঁজ পাওয়া যায় এই সালকিয়াতেই | মৃত্যু ও হয়েছে অনেকের | এই বছরও তার প্রকোপ কম নয় | প্রতিদিন বাড়িতে বাড়িতে কান্নার রব আর অ্যাম্বুলেন্সের শব্দ যেন জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছে | সেই অতিষ্ঠ জীবন থেকে মানুষকে তার আনন্দের দিনে কিছু আনন্দের মাত্রা বাড়িয়ে এই মারণ রোগে আক্রান্ত পরিবারের পাশে দাঁড়াতেই এই উদ্যোগ | অনেক সংগঠন এগিয়ে এসেছে বিভিন্ন সেবামূলক কাজে | তার থেকে আমরাও পিছিয়ে থাকবো কেন | শুধু সালকিয়া নয় আমরা সিধান্ত নিয়েছি হাওড়া শহরের যে কোনও প্রান্তে আমরা পৌঁছে যাবে | কলকাতা বা শহরতলীর মানুষকে বঞ্চিত করতে না চাইলেও কেক পৌঁছে দেওয়ার সমস্যার জন্য আ হয়ে উঠছে না | করোনা কেড়েছে অনেক কিছু তবে করোনা ফিরেছে সমাজের মানবিক মুখ গুলোও |

শহরের করোনা আক্রান্ত এক ব্যক্তির দাবি এই মানবিক মুখ যদি সরকার বা প্রশাসন দেখায় তাহলে এই মৃত্যু মিছিল ও পরিষেবা নিয়ে ওঠা অভিযোগ হয়তো মিলিয়ে যাবে সমাজ থেকে |

Debasish Chakraborty

Published by:Debalina Datta
First published: