• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে মুখ থুবড়ে পড়ল ফ্লাই অ্যাশের ইটের ব্যবসা! কর্মহীন বহু শ্রমিক

পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে মুখ থুবড়ে পড়ল ফ্লাই অ্যাশের ইটের ব্যবসা! কর্মহীন বহু শ্রমিক

Fly Ash Bricks

Fly Ash Bricks

পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে মুখ থুবড়ে পড়ল ফ্লাই অ্যাশের ইটের ব্যবসা! কর্মহীন বহু শ্রমিক

  • Share this:

    #বীরভূম: পেট্রোল, ডিজেলের ঝাঁঝে কর্মহীন রাজ্যের কয়েকশো শ্রমিক। অগ্নিমূল্য জ্বালানি। বাড়ছে পরিবহণ খরচ। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ইট, ছাই, সিমেন্টের দামও। প্রোডাকশন খরচের ধাক্কায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বীরভূমের বেশ কয়েকটি ফ্লাই অ্যাশ বা ছাইয়ের ইট তৈরি কারখানা।

    ফ্লাই অ্যাশ ব্রিকস প্রজেক্ট। বক্রেশ্বর তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বর্জ্য ছাই দিয়ে তৈরি হচ্ছে ইট। কিন্তু, পেট্রোল, ডিজেলের আগুন দামে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বীরভূমে এরকমই কয়েকটি ফ্লাই অ্যাশ কারখানা।

    চিমনি ভাটা ও বাংলা ভাটার চেয়ে অনেকটাই কম দাম ফ্লাই অ্যাশের ইটের। মজবুত বেশি। টেকসইও। কাজেই, বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পে চাহিদা বাড়ছিল এই ইটের। কমদামী এই ইট ব্যবহার করছেন সাধারন মানুষও।

    এই ইট পোড়াতে লাগে স্প্রে মেশিন। স্প্রে মেশিন চালাতে প্রয়োজন পেট্রোল-ডিজেলের। ১০০ ইট তৈরি করতে লাগে ১২ লিটার ডিজেল কিংবা ১০ লিটার পেট্রোল। একটি ইট বিক্রি হয় সাড়ে চার টাকায়। ১০০০ ইটের দাম সাড়ে চার হাজার টাকা।

    কিন্তু, পেট্রোল, ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে ইট তৈরির খরচ। বাড়ছে ছাই ও স্টোন ডাস্ট নিয়ে আসার পরিবহণ খরচও। সব মিলিয়ে এখন এক একটি ইটের দাম গিয়ে দাঁড়াচ্ছে আট টাকায়। অর্থাৎ হাজার ইটের দাম আট হাজার টাকা।

    তার থেকে এখন অনেক কম দামে মিলছে চিমনি ও বাংলা ভাটার ইট। ফলে ক্রেতারা হাঁটছেন সেই দিকেই। জ্বালানির জ্বালায় জনপ্রিয় হওয়ার আগেই মুখ থুবড়ে পড়ল ফ্লাই অ্যাশের ইট । কর্মহীন বহু শ্রমিক! কবে পেট্রোল, ডিজেলের দাম কমবে, সেদিকেই তাকিয়ে তাঁরা!

    আরও পড়ুন-এগরায় ফের ট্যারান্টুলার আতঙ্ক! মাকড়শার কামড়ে অসুস্থ স্থানীয় বাসিন্দা

    First published: