বর্ধমানে রেলওয়ে উড়ালপুল সাজবে বাহারী আলোয়

গত বছর মহালয়ার আগে বর্ধমান শহরে এই ঝুলন্ত রেল উড়ালপুলের উদ্বোধন হলেও এখনও এই ব্রিজের কোন অংশ কার তা চূড়ান্ত হয়নি।

গত বছর মহালয়ার আগে বর্ধমান শহরে এই ঝুলন্ত রেল উড়ালপুলের উদ্বোধন হলেও এখনও এই ব্রিজের কোন অংশ কার তা চূড়ান্ত হয়নি।

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমানে রেলওয়েওভার ব্রিজ সাজিয়ে তোলার পরিকল্পনা নিল পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন। সেই সঙ্গে উড়ালপুলের তলায় দোকান বসানোরও পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই উড়ালপুলের সৌন্দর্যায়নের নকশাও চূড়ান্ত বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে। উড়ালপুলের কোন অংশ কার, রেল ও রাজ্য সরকারের মধ্যে তা চিহ্নিত হয়ে গেলেই কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

গত বছর মহালয়ার আগে বর্ধমান শহরে এই ঝুলন্ত রেল উড়ালপুলের উদ্বোধন হলেও এখনও এই ব্রিজের কোন অংশ কার তা চূড়ান্ত হয়নি। রেল ও রাজ্য সরকারের যৌথ উদ্যোগে এই উড়ালপুল তৈরি করা হয়েছে। রেল ও রাজ্য সরকার দুই তরফেরই অর্থ সাহায্যে প্রায় তিনশো কোটি টাকা ব্যয়ে এই উড়ালপুল তৈরি করা হয়। রেললাইনের ওপর ঝুলন্ত কেবল ব্রিজ তৈরির পাশাপাশি তার চারদিকে চারটি রাস্তা তৈরি হয়েছে। দুটি রাস্তা গিয়েছে কালনা ও কাটোয়ার দিকে। বাকি দুটি রাস্তা গিয়েছে দুর্গাপুর ও কলকাতার দিকে।

পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানান, এই উড়ালপুলের কোন অংশ কার তা চিহ্নিত করার কাজ অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে। রাজ্য সরকারের পূর্ত দফতর ও রেলের তরফে যৌথ পর্যবেক্ষণও হয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি কোন অংশ রাজ্য সরকারের ও কোন অংশ রেলের তা চূড়ান্ত হয়ে যাবে। তারপরই রাজ্য সরকার তার অংশ সৌন্দর্যায়নের কাজ করবে। উড়ালপুলে সৌন্দর্য বাড়াতে বাহারি আলো, সবুজ বাগান, ফোয়ারা সবকিছুরই পরিকল্পনা রয়েছে। সেতুর তলায় জবরদখল রুখতে দোকান, বাজার বসানো হবে। সেইসব নকশাও ইতিমধ্যেই চূড়ান্ত করা হয়েছে। পাকাপাকিভাবে রাজ্য সরকার ও রেলের অংশ চূড়ান্ত হয়ে গেলেই সেই কাজ শুরু হয়ে যাবে। সেতু দেখভালের ক্ষেত্রে বর্ধমান পৌরসভাকেও কিছু দায়িত্ব দেওয়ার কথা ভাবনা চিন্তার মধ্যে রয়েছে।

SARADINDU GHOSH

Published by:Arindam Gupta
First published: