ভোটের মুখে বিজেপির জেলা সভাপতি বদল, চাঞ্চল্য বর্ধমানে

ভোটের মুখে বিজেপির জেলা সভাপতি বদল, চাঞ্চল্য বর্ধমানে

সন্দীপ নন্দীকে (ডানদিকে) সরিয়ে বর্ধমান বিজেপির নতুন সভাপতি করা হল অভিজিৎ তা (বাঁ দিকে)-কে। কে।

নির্বাচনের মুখে জেলা সভাপতি বদলের বিষয়টি জেলায় বাসিন্দাদের কাছে আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: বিজেপির বর্ধমান সাংগঠনিক জেলার সভাপতির পদ থেকে সন্দীপ নন্দীকে সরিয়ে দেওয়া হল। তার জায়গায় নতুন জেলা সভাপতি হয়েছেন অভিজিৎ তা। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পূর্ব বর্ধমান জেলার রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বাড়তে থাকা গোষ্ঠী কোন্দলে রাশ টানতেই দলের রাজ্য কমিটিকে এই সিদ্ধান্ত নিতে হলো বলে বিজেপির নেতা কর্মীরা ঘনিষ্ঠ মহলে জানিয়েছেন। নির্বাচনের মুখে জেলা সভাপতি বদলের বিষয়টি জেলায় বাসিন্দাদের কাছে আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে।

আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে ভালো ফল করার জন্য রাজ্যের শস্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত পূর্ব বর্ধমান জেলাকে পাখির চোখ করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। গত লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে এই জেলার দুটি বিধানসভা আসনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাপ্ত ভোটের থেকে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। আবার বেশ কয়েকটি আসনে তৃণমূল কংগ্রেসের ঘাড়ের ওপর নিঃশ্বাস ফেলছে বিজেপি। বেশ কয়েকটি আসন পাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রচারের মাত্রা বাড়াচ্ছে গেরুয়া শিবির। শুধুমাত্র পূর্ব বর্ধমান জেলায় সফর করে গিয়েছেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। কাটোয়ায় জনসভা করার পাশাপাশি বর্ধমানে রোড শো করেন তিনি।

সব মিলিয়ে দল যখন এই জেলায় প্রচারের ঝাঁঝ বাড়াতে চাইছে ঠিক তখন গোষ্ঠী কোন্দল মাথাচাড়া দিচ্ছিল ব্যাপকভাবে। তার ফলশ্রুতিতে গত  ২১ জানুয়ারি দলের নবনির্মিত জেলা কার্যালয় ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে। জেলা কার্যালয়ে ভাঙচুর চালানো হয়। দুটি গোষ্ঠী একে অপরের বিরুদ্ধে ইট-পাথর বৃষ্টি চালায়। একাধিক গাড়িতে আগুন ধরানো হয়। জেলা নেতৃত্বের পক্ষ থেকে প্রথমে সেই ঘটনার জন্য রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তোলা হয়েছিল। যদিও রাজ্য নেতৃত্ব তদন্তের পর দলের দুই গোষ্ঠীর কোন্দলেই সেই ঘটনা ঘটেছিল বলে স্বীকার করে নেয়। সন্দীপ নন্দী সহ চোদ্দ জনকে শোকজ করা হয়। জানিয়ে দেওয়া হয়, যে অভিযোগ উঠেছে তাতে অভিযোগকারীদের দল থেকে বহিষ্কারের মতো সিদ্ধান্তও নেওয়া হয় হতে পারে।

এক মাস পরও সেই ঘটনার দল কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় প্রকাশ্যেই বিক্ষোভ শুরু করেছিলেন দলের পুরোনো কর্মীরা। আদি বিজেপির নাম দিয়ে দেওয়াল লিখন শুরু হয়ে যায়। আলাদা করে প্রার্থী দেওয়ার হুমকি দেন তারা। এরপরই বিজেপির বর্ধমান সদর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি পদ থেকে সন্দীপ নন্দী মকে সরিয়ে দিল দল। এই ঘটনায় উল্লসিত আদি বিজেপি কর্মীরা। তারা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরেই এই দাবি জানিয়ে আসা হচ্ছিল। আশা করা যায় নতুন জেলা সভাপতি সবাইকে নিয়ে নির্বাচনী লড়াইয়ে সামিল হবেন। এ ব্যাপারে সন্দীপ নন্দী বলেন, নতুন জেলা সভাপতিকে অভিনন্দন জানাই। আমাকে রাঢ়বঙ্গ জোনের বুথ ম্যানেজমেন্ট কমিটির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

Published by:Arka Deb
First published: