২০ বছরেও হল না পাকা সেতু, কোলাঘাটে বাঁশের সাঁকো ভাসিয়ে নিয়ে গেল উত্তাল নদী

প্রতি বছরই কোলাঘাটে নদীতে জল বাড়লেই এই অস্থায়ী বাঁশের সেতু ভেঙে পড়ে।

প্রতি বছরই কোলাঘাটে নদীতে জল বাড়লেই এই অস্থায়ী বাঁশের সেতু ভেঙে পড়ে।

  • Share this:

#কোলাঘাট:

নদীর স্রোতে ভেঙে গিয়েছে দুটি বাঁশের সেতু। যার ফলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন কোলাঘাটের জশাড় ও কলাগেছিয়া এলাকার বিস্তীর্ণ অঞ্চলের মানুষজন। কোলাঘাট ব্লকের জশাড় ও কলাগাছিয়া গ্রামে নদীর স্রোতে ভেঙে গিয়েছে এলাকার ২ টি বাঁশের সেতু। গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে নদীর জলস্ফীতি বাড়ার কারনে নদী ও নদী সংযুক্ত খালে ব্যাপক স্রোতের ফলেই যোগাযোগ রক্ষাকারী বাঁশের সেতু জলের স্রোতে ভেঙে পড়ে। এরফলে পূর্ব মেদিনীপুরের কোলাঘাট ব্লকের সাথে পার্শ্ববর্তী পশ্চিম মেদিনীপুরের দাশপুর দু- নম্বর ব্লকের মধ্যে সহজ যোগাযোগ একপ্রকার বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে।

কোলাঘাট ব্লকের জশাড়ে বাঁশের সেতুটি আজ ভোর রাতে জলের তোড়ে ভেঙে যায়। জশাড় ও দাশপুরের শ্রীবরার মধ্যে নদী যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হয়ে উঠেছে নৌকা। রূপনারায়ন নদের সাথে সংযুক্ত দূর্বাচাটী খালের সেতুটিও ভেঙে যায়। ফলে চরম অসুবিধের মধ্যে পড়েছেন এলাকার মানুষজন। স্থানীয়রা জানান, দুই জেলার সংযোগরক্ষাকারী পাকা কংক্রিটের স্থায়ী জশাড় সেতুর কাজ শুরু হয়েছিল বাম আমলে। যা বছর কুড়ি হয়ে গেলেও বর্তমান আজও অসমাপ্ত। প্রতিবছরই নদীতে জল বাড়লেই এই অস্থায়ী বাঁশের সেতু ভেঙে পড়ে। ফলে তখন নৌকাই ভরসা হয়ে ওঠে।

সারা বছরই পয়সা দিয়ে দুই জেলার মানুষকে পারাপার হতে হয় বাঁশের সেতুতে কিংবা নৌকায়। পাশাপাশি এদিন দূর্বাচটী খালের ওপর কলাগাছিয়া গ্রামের অপর একটি বাঁশের সেতুও স্রোতে ভেঙে পড়ে।ফলে কলাগেছিয়া, কুলহান্ডা,ভোড়দহ সহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের মানুষদের অন্য প্রান্তে মাগুড়িয়া যাওয়ার যোগাযোগ সম্পর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। যা চরম সমস্যায় ফেলেছে দুই মেদিনীপুর জেলার মানুষকে।

Published by:Suman Majumder
First published: