বর্ধমানে এসে নেচে মঞ্চ মাতালেন বলি তারকা তুষার কাপুর, মহিমা চৌধুরী

বর্ধমানে এসে নেচে মঞ্চ মাতালেন বলি তারকা তুষার কাপুর, মহিমা চৌধুরী

উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, উৎসবের বিভিন্ন দিনে নামি শিল্পীদের সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নেবেন স্থানীয় শিল্পীরাও।

উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, উৎসবের বিভিন্ন দিনে নামি শিল্পীদের সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নেবেন স্থানীয় শিল্পীরাও।

  • Share this:

#বর্ধমান: ধারাবাহিকতা মেনে তারকাখচিত উদ্বোধন হল এবারের বর্ধমান কাঞ্চন উৎসবের। এবারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মুখ্য আকর্ষণ হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট অভিনেত্রী মহিমা চৌধুরী ও হিন্দি চলচ্চিত্রের নামী অভিনেতা তুষার কাপুর। জনপ্রিয় হিন্দি গানের সঙ্গে নেচে মঞ্চ মাতানো পাশাপাশি দর্শকদের মন জয় করলেন মহিমা ও তুষার কাপুর। শনিবার থেকে শুরু হওয়া ন দিনের এই উৎসব চলবে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

বরাবরই দেশের সেরা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হাজির হতে দেখা গিয়েছে বর্ধমানের এই কাঞ্চন উৎসবে। এর আগে জনপ্রিয় ডায়লগ তুলে ধরে বর্ধমানবাসীর হৃদয় জয় করে নিতে দেখা গেছে মুন্নাভাই সঞ্জয় দত্তকে। এসেছেন রুপোলি পর্দার গ্ল্যামার কুইন মাধুরী দীক্ষিত। এক দো তিন গানের সঙ্গে নেচে মঞ্চ কাঁপিয়েছেন তিনি। এসেছেন সুনীল শেট্টি থেকে শুরু করে গোবিন্দা, আমিশা প্যাটেল, রবিনা ট্যান্ডন সহ অনেকেই। তারকাখচিত উদ্বোধনের পাশাপাশি দেশের নামি সঙ্গীত শিল্পীদের আনা হয় এই কাঞ্চন উৎসবে। সেই ধারা মেনে এবারও বিভিন্ন দিনে উপস্থিত থাকবেন উদিত নারায়ন, দালের মেহেন্দি, মোনালি ঠাকুর, খেসারি লাল, মোহিত চৌহান, সুখবিন্দর সিং, অনুপম রায় সহ দেশের বিখ্যাত সব সঙ্গীত শিল্পীরা।

আরও পড়ুন বর্ধমানে জাতীয় সড়কে বামেদের অবরোধে আটকে তুমুল বিক্ষোভের মুখোমুখি রাজ্যের দুই মন্ত্রী

নিউ নরমালের কাঞ্চন উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দর্শকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। বিপুল জন সমাগম দেখে অভিনেত্রী মহিমা চৌধুরী দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের দেখে করোনা বিদায় নিয়েছে এমনটাই মনে হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও এত বড় উৎসবের আয়োজন করার জন্য উদ্যোক্তাদের তারিফ করেন তিনি। দর্শকদের ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানও তিনি। অভিনেতা তুষার কাপুর বলেন, মা কঙ্কালেশ্বরীর আশীর্বাদেই এই নিউ নরমালে সাফল্যের সঙ্গে এই উৎসবের আয়োজন করা সম্ভব হয়েছে।

উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, উৎসবের বিভিন্ন দিনে নামি শিল্পীদের সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নেবেন স্থানীয় শিল্পীরাও। এছাড়াও অন্যান্য বছরগুলোর মতো এবারও ডগ শো সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা থাকছে। উৎসবের শেষ দিনে থাকবে আতশবাজি প্রদর্শনী। এবারও এই উৎসবে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন স্টল রয়েছে। মেলা বসেছে উৎসব মাঠকে কেন্দ্র করে। সব মিলিয়ে কাঞ্চন উৎসবের আনন্দ উপভোগ করতে প্রস্তুত এলাকার বাসিন্দারা।

Published by:Pooja Basu
First published:

লেটেস্ট খবর