ফের মুর্শিদাবাদে আটকানো হল 'পরিবর্তন রথযাত্রা', বিক্ষোভ বিজেপির

ফের মুর্শিদাবাদে আটকানো হল 'পরিবর্তন রথযাত্রা', বিক্ষোভ বিজেপির
মুর্শিদাবাদে বিজেপি কর্মী-সমর্থকেরা

ফের মুর্শিদাবাদ জেলাতে আটকে দেওয়া হল বিজেপির পরিবর্তন যাত্রা রথ । শুক্রবার দুপুরে মুর্শিদাবাদ জেলার সাগরদিঘী থানার অন্তর্গত মনিগ্রামে বিজেপির পরিবর্তন যাত্রা রথ আটকে দিল পুলিশ প্রশাসন।

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: ফের মুর্শিদাবাদ জেলাতে আটকে দেওয়া হল বিজেপির পরিবর্তন যাত্রা রথ। শুক্রবার দুপুরে মুর্শিদাবাদ জেলার সাগরদিঘী থানার অন্তর্গত মনিগ্রামে বিজেপির পরিবর্তন যাত্রা রথ আটকে দিল পুলিশ প্রশাসন। বেলডাঙা ও বহরমপুর পর এবার সাগরদিঘী এলাকায় শুক্রবার দুপুরে বিজেপি পরিবর্তন যাত্রা রথ আটকে দেওয়া হয়, যার জেরে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয় এবং রাস্তা বসে বিক্ষোভ দেখান বিজেপির নেতৃত্বরা। শুক্রবার সকাল থেকে উত্তর মুর্শিদাবাদ জেলা বিজেপি পক্ষ থেকে রঘুনাথগঞ্জ থেকে পরিবর্তন যাত্রা বের করে মনিগ্রাম হয়ে সাগরদিঘী যাওয়ার কথা।

শুক্রবার বামফ্রন্টের ডাকা বনধের অজুহাত দিয়ে ও আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হতে পারে বলে বিজেপির পরিবর্তন যাত্রা রথ আটকে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। ঘটনার জেরে উত্তেজনা ছড়ায় ।বিজেপি কর্মী ও সমর্থকরা বিক্ষোভে সামিল হন। পুলিশের সঙ্গে বিজেপির নেতৃত্ব দেন ধস্তাধস্তি হয়। পরিবর্তনের রথকে আটকে দিলেও বিজেপি কর্মী ও নেতৃত্বরা পুলিশের বাধা টপকে হাঁটতে শুরু করেন। নবদ্বীপ জোনের বিজেপির পরিবর্তন যাত্রার প্রমুখ কল্যান চৌবে ও উত্তরাঘন্ডের মন্ত্রী রাজেশ কুমার কে হেনস্থা করা হয় এবং তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে অভিযোগ । সাগরদিঘী রঘুনাথগঞ্জ রাজ্য সড়কের মনি গ্রাম  অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান  বিজেপির কর্মীরা ।দফায় দফায় চলে পুলিশের সঙ্গে বিজেপি নেতৃত্ব দের বৈঠক। বিজেপি কর্মীরা পায়ে হেঁটে মিছিল করে হাঁটতে শুরু করেন। প্রায় ঘণ্টা তিনেক পর পুলিশ পরিবর্তন রথকে যাওয়ার অনুমতি দিলে তারপর আবার রথ নিয়ে যাত্রা শুরু করে বিজেপি নেতৃত্বরা। সাগরদিঘী হয় নবগ্রামে পরিবর্তনের রথ ঘুরতে শুরু করে।

এদিনের পরিবর্তনের রথ ঘিরে মানুষের উন্মাদনা ছিল চোখে পড়ার মতো। রাস্তার দু'পাশে গ্রামের মহিলারা উলুর ধ্বনি ও শঙ্খ বাজিয়ে অভ্যর্থনা জানাতে থাকেন। বিজেপি নেতা কল্যান চৌবে বলেন, পুলিশকে আগে জানানো হয়েছিল আমাদের রথ কোন রাস্তা দিয়ে যাবে। সেই নির্ধারিত পথ দিয়ে রথ যাবার সময় পুলিশ পদ আটকে দেয়। পুলিশের দাবি আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হবে। অথচ সাধারণ মানুষের কোন আপত্তি নেই। এরই প্রতিবাদে আমরা করেছিলাম। জঙ্গিপুর জেলার পুলিশ সুপার ওয়াই রঘুবংশী বলেন, সকাল আটটার সময় বেরোনোর কথা ছিল, তা না বেরিয়ে অনেক দেরি করে বের হয়। যেহেতু একটি রাজনৈতিক দলের আজকে বনধের কর্মসূচি ছিল সেই কারণেই আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হবে বলে কিছুক্ষণের জন্য আটকানো হয়েছিল।


Published by:Raima Chakraborty
First published: