মালদহ জেলা পরিষদ দখল নিয়ে ফের তরজা বিজেপি আর তৃণমূলের!

মালদহ জেলা পরিষদ দখল নিয়ে ফের তরজা বিজেপি আর তৃণমূলের!

bjp vs tmc clash on maldah jilla parishad

মালদহ জেলা পরিষদ এখন কার? এই নিয়ে শাসক-বিরোধী তরজা অব্যাহত।

  • Share this:

#মালদহ: মালদহ জেলা পরিষদ এখন কার? এই নিয়ে শাসক-বিরোধী তরজা অব্যাহত। দলবদল করে বিজেপিতে যোগ দেওয়া জেলা সভাধিপতি গৌড়চন্দ্র মন্ডল, জেলা পরিষদের একাধিক সদস্য এবং তৃণমূল নেতা অম্লান ভাদুড়িকে মঙ্গলবার দলীয় কার্যালয়ে সংবর্ধনা দিয়ে স্বাগত জানাল বিজেপি নেতৃত্ব। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সংবর্ধনা সভায় যোগ দিয়ে জেলা সভাধিপতি গৌড়চন্দ্র মন্ডল এবং বিজেপি রাজ্য নেতা সায়ন্তন বসুর দাবি, মালদহ জেলা পরিষদ এখন বিজেপির দখলে রয়েছে।

অন্যদিকে, বিজেপির দাবি উড়িয়ে তৃণমূল জেলা মুখপাত্র শুভময় জানালেন জেলা পরিষদ এখন তৃণমূলেরই। সঠিক সময়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিয়ে দেবে তৃণমূল। সবমিলিয়ে জেলা পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা ঘিরে তৃনমূল আর বিজেপির তরজায় ফের উত্তপ্ত মালদহের রাজনীতি। সায়ন্তন বসু এদিন সংবর্ধনা সভায় বলেন, "আমরা অনেকদিন ধরেই বলে আসছিলাম মালদা জেলা পরিষদ বিজেপির দখলে আসবে । আমরা যে ভিত্তিহীন কথা বলি না আজ তা প্রমাণিত। মালদহ জেলা পরিষদ এখন আমাদের।"

মালদহের সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মন্ডল বলেন, জেলা পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্য বিজেপির সঙ্গে রয়েছেন। তৃণমূলের ক্ষমতা থাকলে অনাস্থা এনে দেখাক। আমরা সঠিক সময় গরিষ্ঠতা প্রমান দিয়ে দেব।" সভাধিপতি ও বিজেপিকে পাল্টা কটাক্ষ করে তৃণমূল জেলা মুখপাত্র শুভময় বসুর দাবি, সভাধিপতি বিজেপিতে যোগদান মঞ্চেও সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের শারীরিক উপস্থিতি দেখাতে পারেননি।  এদিন জেলায় ফিরে বিজেপির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্য তাঁর সঙ্গে ছিলেন না। তাঁর সঙ্গে বিজেপিতে যাওয়া অনেকেই এখন তৃণমূলে ফেরত আসতে চেয়ে যোগাযোগ করছেন। সভাধিপতি দল ছাড়লেও মালদা জেলা পরিষদ তৃণমূলের দখলে রয়েছে। সঠিক সময়ে তৃণমূল এর প্রমাণ দেবে বলে পাল্টা দাবি জেলা মুখপাত্রের।

উল্লেখ্য, মালদা জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য রয়েছেন ৩৭ জন। ম্যাজিক ফিগার অর্থাৎ ক্ষমতা দখলের জন্য যেকোন দলের প্রয়োজন ১৯ জন সদস্যের সমর্থন। এরমধ্যে ২০১৮ পঞ্চায়েত ভোটে বিজেপি ছয়টি আসনের জেতে। পরে একজন বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান। ফলে এই মুহূর্তে মালদহ জেলা পরিষদে দলীয় প্রতীকে জেতা বিজেপির সদস্য সংখ্যা পাঁচ। এদিন জেলা বিজেপির সভাপতি দাবি করেন, তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন আরো ১৬ জন জেলা পরিষদ সদস্য। ফলে সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থন এখন বিজেপির পক্ষে। অন্যদিকে, তৃণমূল এখনও দাবি করছে মালদা জেলা পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা তাঁদের পক্ষেই রয়েছে। ফলে, বিধানসভা ভোট যত এগিয়ে আসছে মালদহের ততই জেলা পরিষদ দখল নিয়ে বাড়ছে রাজনৈতিক উত্তাপ।

(সেবক দেবশর্মা)

Published by:Shubhagata Dey
First published:

লেটেস্ট খবর