Birbhum: শতাব্দীর বৈঠকে হাজির জেলার একমাত্র বিজেপি বিধায়ক, ব্যতিক্রমী ছবি বীরভূমে

তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায় ও বিজেপি বিধায়ক অনুপ কুমার সাহা৷

বীরভূম (Birbhum) জেলার ১১টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে শুধুমাত্র দুবরাজপুরে জয়ী হয়েছে বিজেপি৷

  • Share this:

#সিউড়ি: রাজ্য বিধানসভার অধিবেশন শুরু হওয়ার পর থেকেই শাসক বিরোধী তরজা তুঙ্গে৷ এমন কি বিধানসভার বিভিন্ন চেয়ারম্যানের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন বিজেপি বিধায়করা৷ এই অবস্থাতেও রাজনৈতিক সৌজন্যের ছবি দেখা গেল বীরভূমে৷ সাংসদ তহবিলের অর্থে এলাকার উন্নয়ন সংক্রান্ত বৈঠকে উপস্থিত থাকলেন জেলার একমাত্র বিজেপি বিধায়ক৷ শুধু উপস্থিত থাকাই, বৈঠকে জেলার বিরোধী দলের একমাত্র বিধায়ককেই সবথেকে বেশি বক্তব্য রাখার সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন বীরভূমের সাংসদ শতাব্দী রায়৷

বীরভূম জেলার ১১টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে শুধুমাত্র দুবরাজপুরে জয়ী হয়েছে বিজেপি৷ এ দিন সিউড়িতে জেলাশাসকের দফতরে এলাকার উন্নয়ন নিয়ে বৈঠক ডাকা হয়েছিল৷ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বীরভূমের সাংসদ শতাব্দী রায়৷ সাংসদ তহবিলের অর্থে কোন এলাকায় কী উন্নয়ন প্রয়োজন, সেটাই ছিল আলোচনার বিষয়বস্তু৷ জেলার অন্যান্য বিধায়কদের সঙ্গে দুবরাজপুরের বিজেপি বিধায়ক অনুপ কুমার সাহাকেও এই বৈঠকেই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল৷ আমন্ত্রণ পেয়ে বৈঠকে উপস্থিত হন অনুপবাবু৷ তাঁর বিধায়ক এলাকার বিভিন্ন সমস্যার কথা বৈঠকে তুলেও ধরেন তিনি৷

এ বিষয়ে বৈঠক শেষে প্রশ্ন করা হলে শতাব্দী রায় বলেন, 'ওনাকেই সবথেকে বেশি কথা বলার সুযোগ দেওয়া হয়েছে৷ বার বার মাইক দেওয়া হয়েছে৷ তিনি তাঁর এলাকার সমস্যার কথা বলেছেন৷' দুবরাজপুরের বিধায়ক অনুপ কুমার সাহাও বলেছেন, 'সব সমস্যার কথা তো একদিনে বলা যায় না৷ আমার এলাকার যে সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধানের প্রয়োজন, সেই বিষয়গুলি তুলে ধরেছি৷ আমার কথা শোনা হয়েছে৷'

অতীতে রাজ্য বা জেলা স্তরে এই ধরনের প্রশাসনিক বৈঠকেও রাজনৈতিক ভেদাভেদের অভিযোগ উঠেছে৷ বহু ক্ষেত্রেই বিরোধী দলের বিধায়কদের এই ধরনের বৈঠকে ডাকা হয় না বলে অভিযোগও উঠেছে৷ সে দিক দিয়ে দেখতে গেলে সিউড়ির এ দিনের বৈঠক কিছুটা হলেও ব্যতিক্রমী৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published: