'মে মাসে রাজ্যের আনাচে-কানাচে গেরুয়া আবির খেলা হবে', রায়নার জনসভা থেকে হুঙ্কার বিজেপি নেত্রী দেবশ্রী চৌধুরীর

'মে মাসে রাজ্যের আনাচে-কানাচে গেরুয়া আবির খেলা হবে', রায়নার জনসভা থেকে হুঙ্কার বিজেপি নেত্রী দেবশ্রী চৌধুরীর
রায়নার জনসভা থেকে হুঙ্কার দিলেন বিজেপি নেত্রী দেবশ্রী চৌধুরি।

দু'শোর বেশি আসন জিতে পশ্চিমবাংলা থেকে সরকারি দলের নাম ও নিশান বদলানো হবে। পশ্চিমবঙ্গের আনাচে-কানাচে গেরুয়া আবির খেলা হবে। রায়নায় পরিবর্তন যাত্রার সভা থেকে মন্তব্য দেবশ্রী চৌধুরীর।

  • Share this:

#বর্ধমান: খেলা হবে। নিশ্চয়ই খেলা হবে। মে মাসের মাঝামাঝি গেরুয়া আবির খেলা হবে। তৃণমূলের যুব ভাই স্লোগান দিয়েছে, খেলা হবে। খেলা তো হবেই। দু'শোর বেশি আসন জিতে পশ্চিমবাংলা থেকে সরকারি দলের নাম ও নিশান বদলানো হবে। পশ্চিমবঙ্গের আনাচে-কানাচে গেরুয়া আবির খেলা হবে। পূর্ব বর্ধমানের রায়নায় পরিবর্তন যাত্রার সভা থেকে এই মন্তব্য করলেন বিজেপি নেত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। সভায় বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁও উপস্থিত ছিলেন। বুধবার পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি থেকে পরিবর্তন যাত্রার রথ জামালপুর হয়ে দুপুরে রায়নার শাকটিয়ায় পৌঁছায়। সেখানে পরিবর্তন যাত্রার সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সেই সভায় বিজেপি নেত্রী দেবশ্রী চৌধুরী বলেন, "খেলা তো শুরু হয়ে গেছে। দিদির পাশ থেকে এক এক করে তারারা খসতে শুরু করেছে। নির্বাচন ঘোষণা হলে অনেক বড় খেলা হবে। আরও অনেকে দিদিকে পরিত্যাগ করে বিজেপির সঙ্গে যুক্ত হবে। অনেক বড় খেলা হবে। অনেক ভয়ঙ্কর খেলা হবে। পশ্চিমবঙ্গবাসীকে নিয়ে গত দশ বছরে অনেক খেলা হয়েছে। যেসব প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে তা রাজ্য সরকার পালন করেনি। এগারো সালে দেওয়া প্রতিশ্রুতি পালিত না হওয়ায় পার্শ্বশিক্ষকরা আজ আন্দোলন চালাচ্ছে।"

রাজ্যের শস্যভান্ডার পূর্ব বর্ধমান জেলার কৃষিপ্রধান রায়নায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে দেবশ্রী চৌধুরী বলেন, "সিঙ্গুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনশন করেছেন। তাতে তিনি মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন। কিন্তু এ রাজ্যের কৃষকদের কোনও উন্নতি হয়নি। এ রাজ্যে কটা শিল্প হয়েছে তার উত্তর দেওয়ার সময় এসেছে। তিনি বলেন, আজ সন্ত্রাসের আঁতুড়ঘরে পরিনত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। এ রাজ্যের মতো রাজনৈতিক হিংসা, রাজনৈতিক হত্যা গোটা ভারতবর্ষের আর কোথাও হয় না। আগে বিহার উত্তর প্রদেশে কিছু গোলমাল হতো। সেখানেও এখন তা হয় না। কয়েক মাস আগে বিহারের নির্বাচনে একটা চকলেট বোম পর্যন্ত ফাটেনি। সেখানে পশ্চিমবঙ্গে ২০১৮ সাল থেকে ২০২০ সালের মধ্যে একশো তিরিশ জন বিজেপি নেতাকর্মীকে বলিদান দিতে হয়েছে। এই হিংসার পশ্চিমবাংলাকে বদলাতে হবে। হিংসা, রাজনৈতিক হানাহানি যতদিন না বন্ধ হবে এ রাজ্যে কোনও শিল্প আসবে না।"


Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published: