পূর্বস্থলীতে খেলার মাঠে বিজেপি নেতাকে ব্যাপক মারধরের অভিযোগ, গাড়ি ভাঙচুর, উত্তেজনা

পূর্বস্থলীতে খেলার মাঠে বিজেপি নেতাকে ব্যাপক মারধরের অভিযোগ, গাড়ি ভাঙচুর, উত্তেজনা
এই ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস।

এই ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস।

  • Share this:

#পূর্বস্থলী: ক্রিকেট টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিজেপির নেতাকে মারধরের অভিযোগ উঠল। মঞ্চ থেকে টেনে নামিয়ে তাঁকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই মারধর করেছে বলে অভিযোগ বিজেপির। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পূর্ব বর্ধমান জেলার পূর্বস্থলী দক্ষিণ বিধানসভার শিমুলবাড়িয়া এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। সোমবার বিকেলে এই মারধরের ঘটনা ঘটে। যদিও এই ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস।

মারধরে জখম বিজেপি নেতার নাম মাধব ঘোষ। তিনি বিজেপির ওবিসি মোর্চার জেলা সম্পাদক। ওই নেতার এক সঙ্গীকেও বেদম মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। মারধরের পাশাপাশি মাধব ঘোষের গাড়িতেও ভাঙচুর চালানো হয়।তিনি এখন কালনা মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। ঘটনার প্রতিবাদে সন্ধ্যায় বর্ধমান কালনা রোড অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি। ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুনরায় অশান্তি রুখতে এলাকায় পুলিশি টহল চলছে।

কালনা মহকুমা হাসপাতালের বেডে শুয়ে জখম ওই বিজেপি নেতা বলেন, এলাকায় একটি সাইকেল মিছিল ছিল। সেই কর্মসূচি শেষ করে শিমুলবাড়িয়া এলাকায় একটি ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলাম। ওই অনুষ্ঠান সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ছিল। কিন্তু সেখানেও তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমাদের ওপর হামলা চালায়। আমার গাড়িতেও ভাঙচুর চলে। আমাকে বেদম মারধর করা হয়। এলাকায় বিজেপি করা চলবে না বলে হুমকি দেওয়া হয়।


যদিও এই অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সন্দীপ বসু বলেন, নিজেদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে এই ঘটনা ঘটেছে। এর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকদের কোনও যোগ নেই। কয়েক দিন আগেই বর্ধমানে দলের জেলা কার্যালয়ে বিজেপির দুই গোষ্ঠীর ব্যাপক সংঘর্ষ প্রত্যক্ষ করেছেন রাজ্যবাসী। সর্বত্র তাদের নিজেদের মধ্যে মারামারি চলছে। এখানেও একই ঘটনা ঘটেছে। তাদের গোষ্ঠী সংঘর্ষের দায় এখন তৃণমূলের ওপর চাপাতে চাইছে বিজেপি।

Published by:Arka Deb
First published: