corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা আতঙ্কে হলদিয়া বন্দরে বন্ধ  বায়োমেট্রিক হাজিরা

করোনা আতঙ্কে হলদিয়া বন্দরে বন্ধ  বায়োমেট্রিক হাজিরা

আগামী ৩১শে মার্চ পর্যন্ত সমস্ত বায়োমেট্রিক হাজিরা বাতিল করেছে তারা।

  • Share this:

#হলদিয়া:  করোনা ভাইরাস নিয়ে সতর্ক হলদিয়া বন্দর কর্তৃপক্ষ। আগামী ৩১শে মার্চ পর্যন্ত সমস্ত বায়োমেট্রিক হাজিরা বাতিল করেছে তারা। সতর্কতা হিসেবে  আধার ভিত্তিক স্থায়ী কর্মীদের জন্য নির্ধারিত বায়োমেট্রিক  হাজিরা বক্সে ইতিমধ্যেই লাল টেপ আটকে দেওয়া হয়েছে। হলদিয়া বন্দরের প্রশাসনিক ম্যানেজার অমল দত্ত জানান,  দিল্লীর নির্দেশেই এই ধরনের হাজিরা ৩১শে মার্চ পর্যন্ত বাতিল করা হল। আগামী ৩১শে মার্চ পর্যন্ত হাজিরা খাতায় সই করবেন বন্দর কর্মীরা। বন্দর সূত্রে জানা গেছে, আগাম সতর্কতা হিসেবে  হলদিয়া বন্দরের একটি মেডিক্যাল দল তৈরি করা হয়েছে। সেই দলে প্যারা মেডিক্যাল সদস্যরা পোশাকবিধি মেনেই বিভিন্ন জাহাজে উঠবেন।

বন্দর সুত্রের আরও খবর, হলদিয়া বন্দরে জাহাজ নোঙর করার আগেই সাগরে পৌঁছে যাবেন মেডিক্যাল দলের সদস্যরা।  ইতিমধ্যেই সিঙ্গাপুরের একটি জাহাজের নাবিকাদের পরীক্ষা করা হয়েছে। তাছাড়া নিয়মানুযায়ী জাহাজ হলদিয়া বন্দরে প্রবেশের আগেই জাহাজের ক্যাপ্টেনকে মুচলেকা দিয়ে জানাতে হচ্ছে সন্দেহজনক কোনো নাবিক জাহাজে আছেন কিনা। তাছাড়া জাহাজ বন্দরে প্রবেশ করলেই পরীক্ষা করা হচ্ছে নাবিকদের। হলদিয়া বন্দরের আধিকারিক অমল দত্ত জানান, ‘এখনো পর্যন্ত আমরা পাঁচ হাজার দুশো সাতাশি জনের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেয়েছি। সৌভাগ্যের বিষয় একজনের কোন ধরনের সমস্যা দেখা যায়নি।’১২০০ জন স্থায়ী কর্মী সহ বন্দরের সাইবার সেলের বিভিন্ন বায়োমেট্রিক হাজিরা বন্ধ করা হয়েছে বলে জানা গেছে । কর্মীরা জানাচ্ছেন, শুক্রবার বিকেল থেকেই আমাদের বায়োমেট্রিক হাজিরা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।  শুধু তাই নয়, আগামীদিনে হলদিয়া বন্দরের মধ্যে যেসব কর্মীরা কাজ করবেন তাদের জন্যও নানা বিধিনিষেধ আনতে চলেছেন বন্দর সংস্থা। তবে হলদিয়া বন্দরের মধ্যে মুলত জাহাজের নাবিকদের সাথে যারা সরাসরি কজে যুক্ত তাদের  ক্ষেত্রে এখনও তেমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি  জানা গেছে।

আরও পড়ুন - #Coronavirus: ভারতে আরও বাড়ল করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা, জানুন সর্বশেষ পরিস্থিতি

এদিকে, করোনা আতংক ছড়িয়ে পড়ায় জাহাজের কাজে যুক্ত শ্রমিকদের মধ্যে ভয় ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে বলে সুত্রের খবর। করোনার ভয়ে জাহাজে উঠে মালপত্র ওঠানো নামানোর কাজে যুক্ত শ্রমিকদের মধ্যে দ্রুততা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তারা চাইছে, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব জাহাজে মাল তোলা কিংবা নামানোর কাজ শেষ করে ফেলতে। সেজন্য জাহাজ শ্রমিকদের কাজে জোর তৎপরতা বলে বন্দর সুত্রের খবর। বলা হচ্ছে, জাহাজে পণ্য ওঠানোনামানোর কাজে যুক্ত শ্রমিকরা আগে জাহাজে উঠলে নামতে চাইতো না, কিন্তু করোনা থাবার ভয়ে তারাই এখন জাহাজে উঠে নেমে আসছে দ্রুত!

SUJIT BHOWMIK

Published by: Debalina Datta
First published: March 7, 2020, 12:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर