খুন করে ঘরের মধ্যেই সঙ্গিনীর দেহ পুঁতেও পার পেল না অভিযুক্ত !

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Feb 04, 2017 01:25 PM IST
খুন করে ঘরের মধ্যেই সঙ্গিনীর দেহ পুঁতেও পার পেল না অভিযুক্ত !
মৃত প্রেমিকা আকাঙ্খা শর্মা
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Feb 04, 2017 01:25 PM IST

#ভোপাল: খোঁজ মিলল বাঁকুড়ার তরুণী আকাঙ্খা শর্মার। ভোপালের সাকেত নগরের বাড়ি থেকে দেহ উদ্ধার। ঘরেই সঙ্গিনীর দেহ পুঁতে রেখেও পার পেল না অভিযুক্ত। ভোপালের বাসিন্দা উদয়নের সঙ্গে লিভ ইন করতেন বাঁকুড়ার আকাঙ্খা। জেরায় গলা টিপে খুনের কথা স্বীকার অভিযুক্তের।

আরও পড়ুন---->

ময়নাতদন্তের পর আকাঙ্খার দেহ তুলে দেওয়া হল পরিবারের হাতে

বচসার পর শ্বাসরোধ করে খুন। বান্ধবীর দেহ চৌবাচ্চায় রেখে সিমেন্ট দিয়ে ঢালাই। পুলিশি জেরায় খুনের কথা স্বীকার উদয়ন দাসের। ২০১৫-এ বাঁকুড়ার আকাঙ্খা শর্মার সঙ্গে ফেসবুকে আলাপ হয় ভোপালের উদয়ন দাসের। আমেরিকায় চাকরি পাওয়ার নাম করে গত বছর জুন মাসে বাড়ি ছাড়েন আকাঙ্খা। ভোপালে গিয়ে উদয়ন দাসের সঙ্গে লিভ ইন শুরু করেন। গত বছর ডিসেম্বরে হঠাৎই বাড়ির সঙ্গে আকাঙ্খার ফোনে যোগাযোগ বন্ধ হয়। তবে ফেসবুকে নিয়মিত বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন আকাঙ্খা। এমনকী পুরনো ছবি, ফের ফেসবুকে পোস্টও করেন তিনি। আকাঙ্খার আ্যাকাউন্ট থেকে বেশ কয়েকবার টাকাও তোলা হয়। এতেই সন্দেহ হয় তাঁর পরিবারের। বাঁকুড়া পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তাঁরা। শেষবার ভোপালের সাকেতনগরে আকাঙ্খার মোবাইল টাওয়ার ট্র্যাক করে পুলিশ। বাঁকুড়া জেলা পুলিশের বিশেষ দল ভোপাল যায়। মোবাইল ও ফেসবুকের সূত্রে উদয়ন দাসের খোঁজ পায় পুলিশ। তাকে জেরা করেই আকাঙ্খার হদিশ মেলে।

আরও পড়ুন--->

আকাঙ্খা খুন কাণ্ডে অভিযুক্তকে জেরায় চাঞ্চল্যকর তথ্য এল পুলিশের হাতে !

এখানেই পাওয়া যায় আকাঙ্খার দেহ এখানেই পাওয়া যায় আকাঙ্খার দেহ

জেরায় উদয়নের দাবি

- বছর ঘুরতেই সম্পর্কের অবনতি

- নিজেকে বন বিভাগের কর্তা বলে পরিচয় দেয় উদয়ন

- মিথ্যে সামনে আসায় দু'জনের মধ্যে বচসা

- বচসার পর শ্বাসরোধ করে খুন

- বান্ধবীর দেহ বাক্সে করে চৌবাচ্চায় রেখে সিমেন্ট দিয়ে ঢালাই করে উদয়

অভিযুক্তকে সঙ্গে নিয়ে সাকেতনগরের বাড়িতে যায় পুলিশ। অভিযুক্তের দেখানো জায়গায় সিমেন্ট ভেঙে আকাঙ্খার দেহ উদ্ধার হয়।

অভিযুক্ত উদয়ন দাস অভিযুক্ত উদয়ন দাস

উদয়নের চাল-চলন খুবই অস্বাভাবিক বলে দাবি প্রতিবেশীদের ময়নাতদন্তের জন্য আকাঙ্খার দেহ পাঠানো হয়েছে। ধৃত উদয়নকে জেরা করছে পুলিশ। তার পরিচয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উদয়নের পরিবারের লোকজনের সম্পর্কেও তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। ঘটনায় আর কারও যোগ আছে কি না ? তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

First published: 09:16:47 AM Feb 03, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर