• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • এলাকার বেহাল রাস্তা,  জমা জল-আবর্জনা থেকে মুক্তি পেতে মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত সঙ্গীত শিল্পী

এলাকার বেহাল রাস্তা,  জমা জল-আবর্জনা থেকে মুক্তি পেতে মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত সঙ্গীত শিল্পী

একবার বৃষ্টি হলে সেই জল নামতে কম করে সময় লাগে তিনমাস | জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও সুরাহা হয়নি কোন ক্ষোভ সঙ্গীত শিল্পীর, তাই বাধ্য হয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছি, সঙ্গে কিছু ছবিও পাঠিয়েছিলেন শিল্পী |

একবার বৃষ্টি হলে সেই জল নামতে কম করে সময় লাগে তিনমাস | জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও সুরাহা হয়নি কোন ক্ষোভ সঙ্গীত শিল্পীর, তাই বাধ্য হয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছি, সঙ্গে কিছু ছবিও পাঠিয়েছিলেন শিল্পী |

একবার বৃষ্টি হলে সেই জল নামতে কম করে সময় লাগে তিনমাস | জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও সুরাহা হয়নি কোন ক্ষোভ সঙ্গীত শিল্পীর, তাই বাধ্য হয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছি, সঙ্গে কিছু ছবিও পাঠিয়েছিলেন শিল্পী |

  • Share this:

#কলকাতা: এলাকার রাস্তার বেহাল অবস্থা, বৃষ্টি নাহলেও জমে রয়েছে জল | এমনটাই অভিযোগ করে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীকে ট্যুইট করে জানালেন জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত সঙ্গীত শিল্পী ইমন চক্রবর্তী | ইমনের অভিযোগ পেয়ে সঙ্গীত শিল্পীকে আশ্বস্ত করেন মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় | একদিকে ইমন ও অন্য দিকে এলাকার বিধায়ক বৈশালি ডালমিয়ার আবেদনে সারা দিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে এলাকা পরিদর্শনে যান রাজ্যের ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী তথা হাওড়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের নব নিযুক্ত সভাপতি লক্ষী রতন শুক্লা , পরিদর্শনে যান হাওড়া পুরসভার কমিশনার দাভাল জৈন |

এলাকা পরিদর্শনের সময় পরিদর্শনকারী দলের সদস্যদের কাছে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেন ইমন চক্রবর্তী | ইমন ও এলাকার বাসিন্দাদের দাবি দীর্ঘ দিন ধরে লিলুয়ার বিস্তীর্ণ এলাকায় কোন কাজ করেননি বিগত পুরবোর্ডের কাউন্সিলররা | মূলত অভিযোগ হাওড়া পুরসভার ৬৪, ৬৫ ও ৬৬ নাম্বার ওয়ার্ডের বিস্তীর্ণ এলাকা খানা খন্দে ভরা, যত্র তত্র পরে রয়েছে আবর্জনা আর বৃষ্টির জমা জল দুর্ভোগ নিত্য সঙ্গী হয়ে রয়েছে লিলুয়ার বাসিন্দাদের |

একবার বৃষ্টি হলে সেই জল নামতে কম করে সময় লাগে তিনমাস | জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও সুরাহা হয়নি কোন ক্ষোভ সঙ্গীত শিল্পীর, তাই বাধ্য হয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছি, সঙ্গে কিছু ছবিও পাঠিয়েছিলেন শিল্পী | এলাকা পরিদর্শন করে মন্ত্রী লক্ষী রতন শুক্লা জানান, কয়েকদিন আগেই বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া এই অভিযোগ করেছিলেন, তাকে কথা দিয়েছিলাম এলাকায় যাব, সেই কারণেই এলাকায় গিয়েছিলাম সেখানে ইমন চক্রবর্তীর ক্ষোভের কোথাও শুনলাম , সত্যি এলাকার অবস্থা খুব খারাপ, খুব দ্রুত এলাকা সংস্কারের কাজ শুরু হবে |

অন্যদিকে, পুরো কমিশনার দাভাল জৈন বলেন, রোজই বৃষ্টি হচ্ছে ফলে এখন রাস্তা মেরামতির কাজ করা মুশকিল তাই এখনই পুরোপুরি রাস্তার কাজ নাহলেও বৃষ্টি কম হলে রাস্তার প্যাচ ওয়ার্ক করা হবে, যেখানে যেখানে জমা জল রয়েছে সেখানে পাম্প বসিয়ে জল বের করার কাজ ও এলাকার ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার করা হবে |

Debashish Chakraborty

Published by:Elina Datta
First published: