Home /News /south-bengal /

ভাষা দিবস পালনই সার, বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বাঙালি বিজ্ঞানীর নামফলকেই ভুল বানান !

ভাষা দিবস পালনই সার, বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বাঙালি বিজ্ঞানীর নামফলকেই ভুল বানান !

বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলাপবাগ ক্যাম্পাসের লাগোয়া তারা মণ্ডলের সামনের রাস্তায় বাঙালি বিজ্ঞানীর নামফলকে ভুল বানান।

  • Share this:

#বর্ধমান: ঘটা করে ভাষা দিবস পালনই সার। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনেই বাঙালি বিজ্ঞানীর নামফলকের বাংলা বানানেই ভুল! অবিলম্বে সেই ভুল সংশোধনের দাবি তুলেছেন সচেতন বাসিন্দারা।

রাজ্যের অন্যান্য জায়গার মতো পূর্ব বর্ধমানের সর্বত্রই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হল। আলোচনা, নানান অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ভাষা আন্দোলনের শহিদদের শ্রদ্ধাজ্ঞাপনে কোনও খামতি ছিল না। ঠিক তখন বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলাপবাগ ক্যাম্পাসের লাগোয়া তারা মণ্ডলের সামনে রাস্তায় ভুল থেকে গেল বাংলায় লেখা বাঙালি বিজ্ঞানীর নামফলকে। মেঘনাদ সাহা তারামণ্ডলের নামফলকে লেখা রয়েছে মেঘনাথ সাহা তারামণ্ডল। মেঘনাদের ‘নাদ’ হয়ে গিয়েছে ‘নাথ’। তাই  নিয়ে সরব হয়েছেন  সমাজের বিভিন্ন স্তরের বাংলা সচেতন বাসিন্দারা। বিরক্তির সঙ্গে অবিলম্বে বানান ঠিক করার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

রাস্তা সংস্কারের পর কিছু দিন আগে এই ফলকগুলি লাগানো হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের যাতায়াতের পথে অনেকেরই চোখে পড়ছে এই ভুল বানান। চোখের সামনে বাঙালি বিজ্ঞানীর নামের বানানে এমন ভুল দেখে বিরক্ত তাঁরা। পড়ুয়া শিক্ষক সকলেই বলছেন, ঘটা করে ভাষা দিবস পালন করলেই হবে না। বাংলা ভাষার সম্মান ও মর্যাদা বজায় রাখতে আরও সচেতন থাকতে হবে। এই ধরণের ভুল থাকা কখনোই কাম্য নয়। শুধু বানান ভুল বললে ভুল হবে। বিজ্ঞানীর নামটাই ভুল হয়ে গিয়েছে। এই ভুল চরম অসম্মানের। অবিলম্বে সংশোধন প্রয়োজন।

বর্ধমানের গোলাপবাগ মোড় থেকে কৃষ্ণসায়র পর্যন্ত রাস্তাটি সম্প্রতি সম্প্রসারণ করেছে বর্ধমান উন্নয়ন সংস্থা। রাস্তার সৌন্দর্যায়নও হয়েছে। বানান ভুলের বিতর্কের জেরে  ওই ফলক কে  বসিয়েছে ? তা নিয়ে এখন বর্ধমান পুরসভা ও বর্ধমান উন্নয়ন সংস্থার মধ্যে চাপানউতোর শুরু হয়েছে। দু’তরফেই নাম ফলক বসানোর বিষয়টি অস্বীকার করছে। বাসিন্দারা বলছেন, দায় এড়ানোর খেলা চলুক। রাতের অন্ধকারেও অন্তত ভুল সংশোধন করুক প্রশাসন। অবিলম্বে এই ভুল সংশোধন করা না হলে শহরের মূল এলাকা কার্জন গেটের সামনে ধর্নায় বসারও হুমকি দিচ্ছেন কেউ কেউ। এই ভুল এখন কত তাড়াতাড়ি সংশোধন করা হয় সেটাই দেখার।

Saradindu Ghosh

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Burdwan, Meghnad Saha, Spelling Mistake

পরবর্তী খবর