corona virus btn
corona virus btn
Loading

তেরঙ্গাই হাতিয়ার! স্বাধীনতা দিবসের আগে জাতীয় পতাকার রঙে মাস্ক তৈরি করেই পেট চলছে কালনার দম্পতির

তেরঙ্গাই হাতিয়ার! স্বাধীনতা দিবসের আগে জাতীয় পতাকার রঙে মাস্ক তৈরি করেই পেট চলছে কালনার দম্পতির

স্বাধীনতা দিবসে তেরঙ্গা মাস্কের চমক দিতে তৈরি কালনার খোকন সেখ। কালনার পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে কর্মতীর্থে তাঁর দোকান। ইলাস্টিক দেওয়া কাপড়ের মাস্কগুলি নজরকাড়া। দাম ১৫ থেকে ২০ টাকার মধ্যে।

  • Share this:
#বর্ধমান: করোনা পরিস্থিতি ও লকডাউনে কাজ হারিয়েছেন অনেকেই। অনেকের পেশাই বদলে গিয়েছে। তেমনই এই পরিস্থিতিতেই দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। তেমনই একজন কালনার খোকন সেখ। তেরঙ্গা পতাকাকে সঙ্গী করে জীবন সংগ্রামে নেমেছেন তিনি। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে পাশে দাঁড়িয়েন তাঁর স্ত্রী সাহিনূর। দিন রাত এক করে তেরঙ্গা মাস্ক তৈরি করে চলেছেন তাঁরা। স্বাধীনতা দিবসে তেরঙ্গা মাস্কের চমক দিতে তৈরি কালনার খোকন সেখ। কালনার পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে  কর্মতীর্থে তাঁর দোকান। মহিলাদের পোশাক তৈরির প্রশিক্ষণ ছিল তাঁর। কিন্তু এই করোনা আবহে সে কাজের চাহিদা নেই। তাই মাস্ক তৈরি করেই দিন গুজরান করছেন খোকন। স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে তৈরি করছেন তেরঙ্গা মাস্ক। স্কুল পড়ুয়া থেকে শুরু করে অনেকের কাছেই এই মাস্কের চাহিদা হবে বলে আশাবাদী তিনি। লকডাউনে পরিযায়ী শ্রমিক কথাটির সঙ্গে পরিচিত হয়েছেন সকলেই। বাংলা থেকে ভিনরাজ্যে প্রচুর মানুষ কাজে যান। ফিরেও এসেছেন অনেকে। তেমনই একজন খোকন সেখ। কালনার ডাঙাপাড়ার যুবক খোকন শেখ কয়েক বছর আগে মুম্বাই গিয়েছিলেন কাজের সন্ধানে। সেখানে লেডিজ টেলারিংয়ের কাজ শেখেন।  কর্মতীর্থে একটি দোকানঘর মেলায় ফিরে আসেন তিনি। কিন্তু রেডিমেডের যুগে লেডিজ টেলারিংয়ের অবস্থা শোচনীয়। দিনে দিনে চাহিদা কমছে। এই করোনা পরিস্থিতিতে অবস্থা আরও শোচনীয়। তবে তাতে দমেননি খোকন। অভিজ্ঞতা সম্বল করে বিকল্প কাজ হিসেবে মাস্ক বানাতে শুরু করেন। সেই ফেস কভারকে ঘিরেই এখন ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই চালাচ্ছেন খোকন।
স্বাধীনতা দিবসের আগে খোকনের দোকানঘরে গিয়ে দেখা গেল স্ত্রী সাহিনূর বিবিকে নিয়ে তিনি তেরঙা মাস্ক বানাচ্ছেন। ইলাস্টিক দেওয়া কাপড়ের মাস্কগুলি নজরকাড়া। দাম ১৫ থেকে ২০ টাকার মধ্যে। স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ছোট সাইজের মাস্কও তৈরি করা হচ্ছে। অগ্রিম অর্ডার দিলে রয়েছে আকর্ষণীয় ছাড়ও।  খোকন আর তাঁর স্ত্রীর কথায়, লকডাউনে তেমন কাজ নেই। বসে না থেকে অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে। Saradindu Ghosh
Published by: Elina Datta
First published: August 13, 2020, 1:20 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर