Home /News /south-bengal /
Rath Yatra: বসল মেলা, ঐতিহ্য মেনে টান পড়লো বর্ধমান রাজবাড়ির রাজা-রানির রথের রশিতে

Rath Yatra: বসল মেলা, ঐতিহ্য মেনে টান পড়লো বর্ধমান রাজবাড়ির রাজা-রানির রথের রশিতে

Rath Yatra

Rath Yatra

Rath Yatra: ইতিহাস বলছে,আগে বর্ধমান রাজবাড়ির এই রথের জাঁকজমকই ছিল আলাদা।

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমানে রাজার রথে বসেন গোপাল, রানির রথে চড়েন লক্ষ্মী, নারায়ণ। জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা, এখানে থাকেন না। আগে রানির রথ ছিল রূপোর, রাজার রথ পেতলের। এ ভাবেই সাড়ে তিনশো বছর ধরে টানা হচ্ছে বর্ধমান রাজবাড়ির রাজা-রানীর রথ। এই রথকে ঘিরে আগে ব্যাপক উন্মাদনা ছিল। রাজ আমল বিলুপ্তি হওয়ার পর থেকে আড়ম্বর কমেছে। তবে ঐতিহ্য বজায় রয়েছে পুরোপুরি।

গত দু-বছর করোনার কারণে রথের মেলা না বসলেও এ বারে পুরানো রীতি মেনেই বর্ধমান মহারাজার রাজা ও রানির রথ টানা  হচ্ছে।বসেছে মেলাও। আসছেন ভক্তরাও। বিশেষ পুজো পাঠের পর রথ বের  করা হয় শুক্রবার। বর্ধমান রাজবাড়ি সংলগ্ন সোনাপট্টির পাশে রয়েছে লক্ষী নারায়ণ জিউ মন্দির। সেখানেই রয়েছে সাড়ে তিনশো বছরেরও পুরনো রাজা রানির রথ। মহারাজ মহতাব চাঁদের আমলে ছিল পাঁচ তলার রথ। এখন তা অনেক ছোট হয়ে গিয়েছে। এখানে দুটি রথ রয়েছে। একটি রাজার রথ। অন্যটি রানির। রানির রথ আগে ছিল রূপোর। এখন কাঠের। রাজার রথ পেতলের। এখানে জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা, থাকে না। বদলে রাজার রথে উঠে বসেন গোপাল, রানির রথে লক্ষ্মী নারায়ণ।

আরও পড়ুন - যা হচ্ছে, তার জন্য একক ভাবে দায়ী নূপুর শর্মা, তীব্র ভর্ৎসনা সুপ্রিম কোর্টের

ইতিহাস বলছে,আগে বর্ধমান রাজবাড়ির এই রথের জাঁকজমকই ছিল আলাদা। রথ উপলক্ষে  যাত্রাপালা হত। কলকাতার নামি যাত্রাদল আসত। আমন্ত্রণ পেতেন বন্ধু রাজারাও। যাত্রাপালার পাশাপাশি হতো রামায়ণ পড়ে শোনানো হত। ঝাড়বাতিতে সেজে উঠত লক্ষ্মী নারায়ণ জিউ মন্দির। তবে রাজ আমলের অবসানের পর জৌলুস কমলেও  এখনও প্রথা মেনে পূজা অর্চনার পর রথের রশিতে টান দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন - শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের এ বারের পুজোয় মহা চমক! খুঁটি পুজোয় ঘোষিত হল থিম

আগে বর্ধমান রাজবাড়ির এই রথের রশিতে টান পড়ার পরই বর্ধমানের বাকি রথের যাত্রা শুরু হত। প্রথা মেনে মহারাজকুমার প্রণয়চাঁদ মহতাব এখন এই রথের সেবায়েত। তবে বয়সের কারণে এ বারে তিনি আসতে পারেননি। এই রথ রাজবাড়ি কম্পাউণ্ডের মধ্যেই থাকে। রাজবাড়ি লক্ষ্মীনারায়ণ জিউ মন্দিরের প্রধান পুরোহিত উত্তম মিশ্র জানান, ‘‘এখানে আগে যে দুটি রথ ছিল তার একটি রূপোর। অন্যটি পিতলের। রূপোর রথ আর নেই। ভেতরে এখন থাকে কাঠের রথ। একটি রথে থাকেন গোপাল।অন্যটিতে লক্ষীনারায়ণ জিউ। এবারেও এখানেই প্রথম রথের রশিতে টান পড়লো। বাকি শহরে তারপর। ছোটোবেলার দেখা পুরানো ঐতিহ্যের টানে এখনও বহু মানুষ আসেন এখানে। সেই রূপোর রথ, বড় বড় ঘোড়া, বিরাট মেলা, প্রচুর লোক সমাগম। তবে সেইসব এখন অতীত, পলেস্তারা খসে পড়া ভগ্ন রাজবাড়িতে প্রথা মেনে আজও চলছে রথ উৎসব।

শরদিন্দু ঘোষ

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: Rath Yatra

পরবর্তী খবর