corona virus btn
corona virus btn
Loading

বেহাল বর্ধমান কাটোয়া রোড, দ্রুত সংস্কারের নির্দেশ দিলেন জেলাশাসক

বেহাল বর্ধমান কাটোয়া রোড, দ্রুত সংস্কারের নির্দেশ দিলেন জেলাশাসক

খারাপ রাস্তার জেরে ছোটবড় দুর্ঘটনা লেগেই রয়েছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: অবিলম্বে বর্ধমান কাটোয়া রাজ্য সড়ক মেরামতের নির্দেশ দিল পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন। পুরোপুরি বেহাল হয়ে পড়েছে বর্ধমান কাটোয়া রাজ্য সড়কের বেশ কিছু অংশ। বর্ধমান শহরে ঢোকার মুখে বাজেপ্রতাপপুরে জল জমে রাস্তা নদীর চেহারা নিয়েছে। ভাঙা রাস্তায় যাতায়াত করতে গিয়ে হিমসিম খেতে হচ্ছে বাসিন্দাদের। খারাপ রাস্তার জেরে ছোটবড় দুর্ঘটনা লেগেই রয়েছে। যে কোনও সময় গাড়ি উলটে প্রাণহানির আশংকাও থাকছে। পরিস্থিতি বিচার করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই রাস্তা সংস্কারের নির্দেশ দিয়েছেন জেলা শাসক।

বর্ধমান কাটোয়া রাজ্য সড়ক জুড়েই এখন বিশাল বিশাল গর্তের মিছিল। বড় জলাশয়ের রূপ নিয়েছে অনেক এলাকা। বর্ধমান শহরে ঢোকার  মুখে রাস্তার অবস্থা এখন সবচেয়ে বেশি করুণ। গতকাল রাতে সেই এলাকা থেকে জল নামানোর চেষ্টা হয়। তাতে অবশ্য কাজের কাজ কিছু হয়নি। সব মিলিয়ে হতাশ বাসিন্দারা। তাঁরা বলছেন, মাসের পর মাস কঙ্কাল সার অবস্থা এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার। অথচ তা সারাইয়ের ব্যাপারে কোনও হেলদোল নেই প্রশাসনের। এ ব্যাপারে পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী বলেন, ইতিমধ্যেই নতুন ঠিকাদার সংস্থাকে ওই রাস্তা সংস্কারের বরাত দেওয়া হয়েছে। দ্রুততার সঙ্গে সেই কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দু একদিনের মধ্যেই কাজ শুরু হবে।

বেহাল রাস্তার কারনে চরম সমস্যায় গাড়ি চালকরা। তাঁরা বলছেন, জলের তলায় গর্তের গভীরতা আন্দাজ করা যাচ্ছে না। সেই সব গর্তে চাকা পড়ে গাড়ি উলটে যাচ্ছে। চাকা ভেঙে যাচ্ছে। ছোট চাকার গাড়ি নিয়ে যাতায়াত দায় হয়ে উঠেছে। জল জমে তা বড়োসড়ো জলাশয়ের আকার নিচ্ছে। বেহাল রাস্তায় বারে বারেই ঘটছে ছোট বড় দুর্ঘটনা। শহরে ঢোকার মুখে বাজেপ্রতাপপুর, বিজয়রাম, নেড়োদিঘি এলাকায় তীব্র যানজট দেখা দিচ্ছে। রাস্তার হাল এতটাই খারাপ যে কোনও রকমে গাড়ি নিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। রাস্তা অবিলম্বে সংস্কার না হলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন গাড়ি চালকরা। বেহাল রাস্তায় ই-রিক্সা, সাইকেল, মোটর সাইকেল নিয়ে যাতায়াত করা রীতিমত ঝুঁকির ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঝাঁকুনিতে রোগীর প্রাণ সংশয় হওয়ার উপক্রম। বেহাল রাস্তায় রোগীদের অবস্থা আরও কাহিল হয়ে পড়ছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Ananya Chakraborty
First published: June 26, 2020, 7:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर