corona virus btn
corona virus btn
Loading

পরদিনই কেন এতো ভিড় হয়! লকডাউনে শুনশান বর্ধমান দেখে প্রশ্ন সচেতন বাসিন্দাদের

পরদিনই কেন এতো ভিড় হয়! লকডাউনে শুনশান বর্ধমান দেখে প্রশ্ন সচেতন বাসিন্দাদের

চায়ের দোকানে সকাল সন্ধ্যা ভিড় উপচে পড়ছে

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমান শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়াল। প্রায় প্রতিদিনই করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে পূর্ব বর্ধমান জেলার এই সদর শহরে। তবুও বাসিন্দাদের মধ্যে সচেতনতার বালাই নেই। নিয়ম করেই প্রতিদিন বাড়ির বাইরে বেরিয়ে পড়ছেন বাসিন্দারা। চায়ের দোকানে সকাল সন্ধ্যা ভিড় উপচে পড়ছে। শহরের প্রাণকেন্দ্র কার্জন গেট চত্বর-সহ জনবহুল এলাকাগুলিতে আড্ডা চলছে প্রতিদিন। দোকানে বাজারে ভিড় দেখে বোঝার উপায় নাই গোষ্ঠী সংক্রমণ চলছে শহরজুড়ে। লকডাউনের দিনে রাস্তা ঘাট শুনশান থাকলেও বাকি দিনগুলিতে যেভাবে ভিড় হচ্ছে তাতে বেশ চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা।

প্রথম প্রথম এই শহরে বেশ কয়েকদিনের ব্যবধানে দু-একজন করে করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছিল। এখন প্রতিদিনই ৩০-৪০ জন করে করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছে। শুধুমাত্র এই শহরেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে গিয়েছে। জেলায় এদিন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৬ জন বর্ধমান শহরের বাসিন্দা। বর্ধমান শহরের প্রায় সব প্রান্তেই করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। করোনার সংক্রমণের কারণে স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়-সহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। সরকারি অফিসে তেমন হাজিরা নাই। অথচ বেলা বাড়লে নিয়ম করে আড্ডায় বেরিয়ে পড়ছেন অনেকেই। মুখের মাস্ক খুলে রেখে চায়ের কাপে তুফান তুলছেন অনেকেই।

সচেতন বাসিন্দারা বলছেন, লকডাউনের দিনে অনেকেই নিজেদের গৃহবন্দি রাখলেও বাকি দিনগুলি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বেরিয়ে অসচেতনতার প্রমাণ দিয়ে যাচ্ছেন বেশিরভাগ বাসিন্দা। ফাস্ট ফুডের স্টলের সামনে সন্ধ্যায় ভিড় উপচে পড়ছে। দত্ত সেন্টার, বি সি রোড, বড়বাজার, চাঁদনিচক, পুলিশ লাইন বাজার, বেড় মোড় সহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলিতে দাঁড়ালে বোঝাই যায় করোনার সংক্রমণ থেকে রেহাই পাওয়ার ক্ষেত্রে বাসিন্দাদের কোনও তাগিদ নেই।

লকডাউনের দিনে যেশহর শান্ত নিশ্চুপ তার পরদিনই সেই শহরের বাসিন্দারা বাইরে বেরনোর জন্য এত উতলা কেন সে প্রশ্ন ঘূরপাক খাচ্ছে অনেকের মনেই। আর এসব দেখেই চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা। জেলাশাসক বিজয় ভারতী একটানা সাত দিন বর্ধমান শহরে লকডাউনের পরিকল্পনার কথা জানিয়েও আপাতত তা স্থগিত রেখেছেন। তিনি জানান, নিয়মিত পরিসংখ্যানের দিকে নজর রাখা হচ্ছে। সংক্রমণের লেখচিত্র অনুসরণ করা হচ্ছে। করোনা মোকাবিলায় কি কি করনীয় তা নিয়ে সব মহলের সঙ্গে আলোচনা চলছে। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Saradindu Ghosh

Published by: Ananya Chakraborty
First published: August 8, 2020, 6:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर