দক্ষিণবঙ্গ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

থাকছে নৌবিহারের ব্যবস্থা, পর্যটক টানতে সেজে উঠছে বর্ধমানের বাঁশদহ বিল

থাকছে নৌবিহারের ব্যবস্থা, পর্যটক টানতে সেজে উঠছে বর্ধমানের বাঁশদহ বিল

সেজে উঠছে বাঁশদহ বিল। ইতিমধ্যেই পূর্ব বর্ধমানের পূর্বস্থলীর এই বিল সংস্কার করেছে রাজ্য সরকার, এখন সৌন্দর্যায়নের কাজ চলছে

  • Share this:

#বর্ধমান: সেজে উঠছে বাঁশদহ বিল। ইতিমধ্যেই পূর্ব বর্ধমানের পূর্বস্থলীর এই বিল সংস্কার করেছে রাজ্য সরকার, এখন সৌন্দর্যায়নের কাজ চলছে। ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই জলাশয়ে তৈরি হচ্ছে ৩টি জেটি। থাকছে নৌভ্রমণের ব্যবস্থা। সব মিলিয়ে পর্যটক টানতে সেজে উঠছে বাঁশদহ বিল।

বাঁশদহ বিলকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর ডিসেম্বরের শেষে অনুষ্ঠিত হয় খাল বিল উৎসব। মূলত জলাভূমি বাঁচিয়ে রেখে চুনো, পুঁটি, কই, খলসে, মৌরলা -সহ স্থানীয় মাছের যোগান বাড়ানো উৎসবের অন্যতম উদ্দেশ্য। সেই উৎসবের এবার ২০ বছর পূর্তি। তারই অঙ্গ হিসেবে বাঁশদহ বিল থেকে নিমতলা ব্রিজ পর্যন্ত নৌকা বিহার ও তার আশপাশ পরিদর্শন করা হল  শনিবার। এ'দিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ,পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দিলীপ মল্লিক-সহ বিশিষ্টজনেরা।

এদিন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানান, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসার পর তাঁর কাছে গ্রাম অঞ্চলের খাল-বিল সংস্কার নিয়ে প্রস্তাব রাখা হয়েছিল। তিনি সেই ডাকে সাড়া দিয়ে ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই বাঁশদহ বিল সংস্কারের জন্য অর্থ বরাদ্দ করেন। সেই মতো সেচ দফতরের দেওয়া টাকায় সংস্কার করা হয় বাঁশদহ বিল । বিলের পাড়ে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার ভাবনা রয়েছে সরকারের। ইতিমধ্যেই গড়ে উঠেছে পর্যটকের জন্য আবাসন। দীর্ঘ পাঁচ কিলোমিটার এই বিলের তিন জায়গায় তিনটি জেটির ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি নৌকা বিহারের ব্যবস্থা থাকবে পর্যটকদের জন্য। দীর্ঘ এই ক্যানেলের মধ্যে সাঁতারের বাৎসরিক প্রতিযোগিতারও আয়োজন করার ভাবনা রয়েছে। শান্ত, সুন্দর, সবুজের সমারোহে ঘেরা বাঁশদহ বিল অবিলম্বে পর্যটন মানচিত্রে পাকাপাকি জায়গা করে নেবে বলে আশাবাদী মন্ত্রী।

মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বলেন, জলাভূমি সংস্কারের ফলে খাল-বিলে চুনো-সহ নানান স্থানীয় মাছের যোগান বাড়বে। আয় বাড়বে স্থানীয় মৎস্যজীবীদের। পর্যটকদের ভিড় বাড়লে স্থানীয় বাসিন্দাদের কর্মসংস্থানও হবে। সেই লক্ষ্যেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

SARADINDU GHOSH

Published by: Rukmini Mazumder
First published: October 17, 2020, 9:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर