বাঁকুড়ায় সমবায় ব্যঙ্কে ১৫ কোটি টাকা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ , জেলা শাসকের দ্বারস্থ সমবায় বাঁচাও মঞ্চ

বাঁকুড়া জেলা কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যঙ্কে প্রায় ১৫ কোটি টাকা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ তুলে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে এবার

বাঁকুড়া জেলা কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যঙ্কে প্রায় ১৫ কোটি টাকা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ তুলে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে এবার

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #বাঁকুড়া: বাঁকুড়া জেলা কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যঙ্কে প্রায় ১৫ কোটি টাকা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ তুলে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে এবার বাঁকুড়া জেলা শাসকের দ্বারস্থ হল সমবায় বাঁচাও মঞ্চ । এদিকে অডিট রিপোর্টে আর্থিক অনিয়মের বিষয়টি সামনে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে সমবায় ব্যাঙ্ক কর্তিপক্ষ । শুরু হয়েছে বিভাগীয় তদন্তও ।

    বাঁকুড়া জেলা কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যঙ্ক রাজ্যের সমবায় ব্যঙ্ক গুলির মধ্যে অন্যতম । জেলার প্রায় সব ব্লকেই এই ব্যঙ্কের নিজস্ব শাখা রয়েছে । প্রতি বছর এই শাখা ব্যঙ্কগুলি ও অসংখ্য সমবায় সমিতির মাধ্যমে এই ব্যঙ্ক হাজার হাজার কৃষককে কৃষি ঋণ দিয়ে থাকে ।

    এছাড়াও হাজার হাজার আমানতকারীর টাকা এই ব্যঙ্কে গচ্ছিত রয়েছে । সম্প্রতি একটি দৈনিকে এই ব্যঙ্কের ২০১৫ -২০১৬ আর্থিক বর্ষের অডিট রিপোর্ট প্রকাশিত হয় । অভিযোগ এই রিপোর্টে ব্যঙ্কে আমানতকারীদের জমা থাকা প্রায় ১৫ কোটি টাকা নন প্রফিট অ্যাসেট ইনভেস্টমেন্ট হিসাবে দেখানো হয়েছে । এছাড়াও ওই আর্থিক বর্ষে ব্যঙ্কের প্রায় ৭ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে । এই অডিট রিপোর্ট সামনে আসতেই নড়ে চড়ে বসে বিভিন্ন মহল । সাধারন মানুষের আমানতে তিল তিল করে গড়ে ওঠা এই সমবায় ব্যঙ্ককে বাঁচানোর লক্ষে তৈরি হয় বাঁকুড়া জেলা সমবায় বাঁচাও মঞ্চ ।

    মঞ্চের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকদফা দাবি নিয়ে রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীকে আবেদন জানানো হয় । কিন্তু ওই দু জায়গা থেকেই তেমন পদক্ষেপ না হওয়ায় আজ বাঁকুড়ার জেলা শাসকের দফতরে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন মঞ্চের সদস্যরা । মঞ্চের পক্ষ থেকে এদিন দাবি করা হয় জুলাই মাসে একটি রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যঙ্কের বন্ড কেনার জন্য সমবায় ব্যঙ্কের পরিচালন সমিতি দেবাঞ্জন রায় নামে এক ব্রোকারকে ১৫ কোটি টাকার চেক তুলে দেয় । দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও ওই ব্রোকার এখনও পর্যন্ত সেই বন্ড সমবায় ব্যঙ্কে জমা করেনি ।

    ব্যঙ্কের ওই বিপুল পরিমাণ টাকাকেই অডিট রিপোর্টে নন প্রফিট অ্যাসেট ইনভেস্টমেন্ট হিসাবে দেখানো হয়েছে । এছাড়াও গত আর্থিক বর্ষে ব্যঙ্কের সাত কোটি টাকা লোকসাণের জন্যও পরিচালন সমিতিকে কাঠগোড়ায় তুলেছে সমবায় বাঁচাও মঞ্চ । ওই মঞ্চের দাবি ব্যঙ্কের বর্তমান পরিচালক মণ্ডলী অপদার্থ ও দুর্নীতি পরায়ন হওয়ার কারণেই দীর্ঘদিন ধরে লাভজনক থাকা এই ব্যঙ্কটি লোকসানের মুখে পড়েছে । পরিচালক মণ্ডলীর চেয়ারম্যান বলেন ব্যঙ্কের আধিকারিকদের গাফিলাতিতেই এই ঘটনা ঘটেছে । তা স্বত্বেও বিষয়টি নিয়ে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন । অ্যাসিস্ট্যান্ট রেজিস্টার অফ কো অপারেটিভ সোসাইটিজ বলেন , ঘটনার তদন্ত চলছে ।

    First published: