হোম /খবর /নদিয়া /
কল আছে জল নেই, অভাব নিরাপদ থাকার ব্যবস্থাও, চরম দুর্দশায় আদিবাসী মানুষেরা 

Bangla News: কল আছে জল নেই, অভাব নিরাপদ থাকার ব্যবস্থাও, চরম দুর্দশায় আদিবাসী মানুষেরা 

এ কী দুরাবস্থা!

এ কী দুরাবস্থা!

Bangla News: ওই এলাকার বাসিন্দা শিবানী রায় বলেন, "ভোট আসলেই পঞ্চায়েত সদস্যদের দেখা পাওয়া যায়।''

  • Share this:

নদিয়া: কল আছে জল নেই, নেই থাকার মত নিরাপদ জায়গা। খোঁজ নিতে আসেন না জনপ্রতিনিধি। চরম দুর্দশায় দিন কাটছে আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষের। নদিয়ার শান্তিপুর থানার বেলঘড়িয়া এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের চাপাতলা এলাকার বাসিন্দাদের পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে হাজারো অভিযোগ। সময় হয়েছে পঞ্চায়েত নির্বাচনের। বিগত পাঁচ বছরে মানুষ কতটা পরিষেবা পেল সে নিয়েই প্রতিক্রিয়া নেওয়া হয়েছিল এলাকার মানুষের। বেলঘড়িয়া এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের চাপাতলা এলাকায় রয়েছে আদিবাসী গ্রাম। এখনও করুণ চিত্র দেখা গেল ওই গ্রামে। হাতে গোনা কয়েকজন আবাস যোজনার ঘর পেলেও অধিকাংশ মানুষ এখনও ভাঙা ঘরে বসবাস করেন। ঝড় বৃষ্টির মধ্যে আতঙ্কে দিন কাটে তাদের। বৃষ্টি হলেই ঘরের মধ্যে জল পড়ে। দিন আনা দিন খাওয়া সংসারে জলটুকু কিনে খেতে হয়। কারণ এলাকায় জলের লাইনের কল বসানো হলেও সেটা দিয়ে জল পড়ে না।

ওই এলাকার বাসিন্দা শিবানী রায় বলেন, “ভোট আসলেই পঞ্চায়েত সদস্যদের দেখা পাওয়া যায়। ভাঙ্গা ঘরে আমাদের দিন কাটাতে হয়। ঝড় বৃষ্টিতে চরম আতংকের মধ্যে থাকি। খাবার জলটুকু আমাদের নেই। পঞ্চায়েতে তরফে কলের লাইন দেওয়া হয়েছে কিন্তু প্রায় বছর ধরে জল আসে না।”

ওই এলাকারই আরেক বাসিন্দা সুদাময় রায়ের দাবি, “বয়স্ক ভাতা পেলেও অন্যান্য কখনও পরিষেবা তারা পান না। পঞ্চায়েত সদস্য কখনও খোঁজ নিতে আসেন না। তীব্র পানীয় জল কষ্টে ভুগছেন তারা। জলের লাইন বসানো হয়েছে কিন্তু জল আসে না সেই কারণে নিম্নমানের জল খেয়ে দিন কাটাতে হয়।

আরও পড়ুন: মেয়ের সঙ্গে সাক্ষাতের পরই ভোলবদল অনুব্রতর! সোমবার যা করলেন, তোলপাড় বাংলা

ওই এলাকার প্রবীণ বাসিন্দা রথীন্দ্রনাথ চক্রবর্তী দাবি, “আগে জল স্বাস্থ্য এবং কর্মের ব্যবস্থা করা উচিত। তিনি বলেন দু’চারটে রাস্তা হলেও পঞ্চায়েত এলাকার প্রধান যে রাস্তা সেই রাস্তা বেহাল দশা হয়ে পড়ে রয়েছে। স্বাস্থ্য বজায় রাখতে হলে আগে বিশুদ্ধ পানীয় জল প্রয়োজন। অবিলম্বে পঞ্চায়েতের তরফ থেকে পানীয় জলের পরিষেবা সকলের বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছানো উচিত।”

এ বিষয়ে বিজেপি নেতা সুফল সরকার বলেন, “মানুষের অনেক চাওয়া পাওয়া আছে। ঠিকমতো মানুষ পরিষেবা পায় না। ১০০ দিনের কাজ থেকে শুরু করে বয়স্ক ভাতা কোন কিছুই মানুষ সঠিকভাবে পায় না। পঞ্চায়েতের দায়িত্বে এলে মানুষের সঙ্গে নিয়ে কাজ করব।”

আরও পড়ুন: ‘…গলিল না সোনা’, আদালতে তোলপাড় ফেলে দিলেন পার্থ! অভিষেককে নিয়ে শোরগোল ফেলা মন্তব্য

যদিও নিজেদের উন্নয়নের কথা তুলে ধরেছেন বেলঘড়ি এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান দীপক মন্ডল। তিনি বলেন, “পাঁচ বছরে সব দিক থেকেই যথেষ্ট উন্নয়ন হয়েছে। জলের সমস্যা নিয়ে তিনি বলেন একটি ট্যাংকিতে যে পরিমাণে জলের লাইন থাকার কথা তার থেকে বেশি হওয়ার কারণে পরিষেবা দিতে একটু সমস্যা হচ্ছে। তবে যারা কাজ করছে তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে অবিলম্বে নতুন একটি ট্যাংকি করে জল সরবরাহ করা হবে। তিনি বলেন রাস্তা থেকে শুরু করে বয়স্ক ভাতা এবং ১০০ দিনের কাজ যতটা পেরেছি মানুষের জন্য করেছি। পঞ্চায়েতে যে পরিমাণে অর্থ পাওয়া যায় সেখানে কিছুটা সমস্যা হয় বড় উন্নয়ন করতে।”

——– মৈনাক দেবনাথ

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: Bangla News, Water