Home /News /south-bengal /
Bangla News: মহিলার ফোন নম্বর চেয়ে বিপাকে! অভিযুক্ত যুবকের সঙ্গে যা করে বসলেন গ্রামের মোড়লরা

Bangla News: মহিলার ফোন নম্বর চেয়ে বিপাকে! অভিযুক্ত যুবকের সঙ্গে যা করে বসলেন গ্রামের মোড়লরা

মোবাইল নম্বর চাওয়ায় সালিশি সভা

মোবাইল নম্বর চাওয়ায় সালিশি সভা

Bangla News: গৃহবধূর কাছে মোবাইল নম্বর চাওয়ায় সালিশি সভা বসিয়ে জুতোর মালা পড়িয়ে গ্রামে ঘোরাল অভিযুক্ত যুবককে । ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া থানার কেশাইপুর গ্রামে।

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ : গৃহবধূর কাছে মোবাইল নম্বর চাওয়ায় সালিশি সভা বসিয়ে জুতোর মালা পড়িয়ে গ্রামে ঘোরাল অভিযুক্ত যুবককে । ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া থানার কেশাইপুর গ্রামে। গ্রামেরই একটি বাড়িতে সালিশি সভা বসে সেই সভাতেই পলাশকে মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ। এর পরেই গ্রামের মোড়লদের নিদান অনুযায়ী জুতোর মালা পড়িয়ে পলাশকে গ্রামের মধ্যে ঘোরানো হয়। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

গ্রামসূত্রে জানা গিয়েছে অভিযুক্ত যুবক পলাশ শাহর তারই দূর সম্পর্কের এর বৌদির সঙ্গে দেখা হয় সবজি হাট সংলগ্ন এলাকায়। সেইসময় বৌদির কাছে সে ফোন নম্বর চায়। যদিও ওই মহিলার অভিযোগ, পলাশ তাকে কুকথা বলে। ওই মহিলা তার পরিবারের লোককে জানাতেই গ্রামের মোড়লরা সালিশি সভা ডাকার সিদ্ধান্ত নেয়। পলাশের বাড়িতে গিয়ে তার মাকে শাসানো হয় বলেও অভিযোগ।

আরও পড়ুন : অর্জুনের পথেই কি 'ঘরমুখী' আরও অনেকে? নজরে ৩০ মে 'অর্জুন-গড়ে' অভিষেকের সভা!

এর পরেই গ্রামেরই একটি বাড়িতে সালিশি সভা বসে। সেই সভাতেই পলাশকে মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ এর পরেই গ্রামের মোড়লরা নিদান দেন জুতোর মালা পড়িয়ে পলাশকে গ্রামের মধ্যে ঘোরানো হবে। সে নিমরাজি হওয়ায় তাকে বেধড়ক মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ। তারপর তাকে জুতোর মালা পড়িয়ে গোটা কেশাইপুর গ্রাম ঘোরানো হয়। পলাশের মা মেনকা বেওয়ার অভিযোগ, ছেলে বাইরে রাজমিস্ত্রির কাজ করে গ্রামে ফিরেছে, ওই মহিলা আমাদের আত্মীয় হয় তার সঙ্গে গল্প করবে বলে ফোন নম্বর চেয়েছিল। তার তাতেই গ্রামের লোকেরা সন্দেহ করে সালিশি সভা বসিয়ে আমার ছেলের গলায় জুতোর মালা পড়িয়ে গ্রাম ঘোরায়। শুধু তাই নয়, তাকে মারধোরও করা হয়।

আরও পড়ুন :  তারের এই টুকরোকে Safety Pin বলা হয় কেন জানেন? নেপথ্যের ইতিহাস জানলে চমকে যাবেন!

অভিযুক্ত যুবক পলাশ শাহ বলেন অনেক দিন পর ভাবির সঙ্গে দেখা হয়। আমি কোনও কুকথা বলিনি। বলেছিলাম তোমার ফোন নম্বরটা দিও। তবুও ওরা বিশ্বাস করেনি। আমার উপর মিথ্যা অভিযোগ এনে জুতোর মালা পড়িয়ে গ্রাম ঘোড়ায়।সালিশি সভায় উপস্থিত ছিলেন মোড়ল মুসাকলিম শাহ। তিনি বলেন, "গ্রামের সকলেই উপস্থিত থেকে সালিশি সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় জুতোর মালা পড়ে ঘুরতে হবে। গ্রামের যেহেতু নিজস্ব ব্যাপার সেই কারণে আমরা গ্রামে বসে সিদ্ধান্ত নিই।"

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Bangla News, Murshidabad

পরবর্তী খবর